বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জি এম কাদের আরও বলেন, ‘চলমান সময়ের সরকারি উন্নয়ন ও ত্রাণ সহযোগিতা প্রাপ্তি থেকে আমরা উত্তরবঙ্গের মানুষেরা নানাভাবে বঞ্চিত। অথচ জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক সফল রাষ্ট্রপতি, পল্লিবন্ধু মরহুম হুসেইন মোহম্মদ এরশাদের শাসনামলে সারা দেশে সমভাবে কাজ করা হয়েছে, যার ফলে বাংলাদেশ অল্প সময়ে উন্নতির পথে এগিয়ে গেছে। কারণ, তখন প্রকৃত গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত ও উন্নয়নমুখী কার্যক্রম অব্যাহত ছিল।’

জি এম কাদের বলেন, উত্তরবঙ্গ তথা রংপুর-দিনাজপুর অঞ্চলের মানুষ এরশাদ শাসনামলের পর থেকে উন্নয়নসহ নানা ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার। আগামীতেও জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে সরকার গঠন করে অতীতের মতো এই বৈপরীত্যের অবসান ঘটানো হবে।

জাপা চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘আমরা আগামীতে রাষ্ট্রক্ষমতায় যাওয়ার জন্য সাংগঠনিক পরিকল্পনানুযায়ী কার্যক্রম শুরু করেছি। এই কাজকে সফল করতে পার্টির নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থেকে সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির পাশাপাশি জনগণকে আরও বেশি সম্পৃক্ত করতে প্রচেষ্টা চালাতে হবে।’ এ জন্য তিনি সবার প্রতি আহ্বান জানান।

ঢাকা থেকে সৈয়দপুর বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর জাপা চেয়ারম্যানকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর জাপা সভাপতি গোলাম মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন হোসেন, নীলফামারী-৪ আসনের সাংসদ আহসান আদেলুর রহমান, নীলফামারী-৩ আসনের সাংসদ মেজর (অব.) সোহেল মোহাম্মদ রানা, সৈয়দপুর উপজেলা জাপা সভাপতি সিদ্দিকুল আলম, জাপা কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাকিব খান প্রমুখ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন