বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের রোববার সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে বলেন, মামলার আবেদনটি তিনি দেখেছেন। তিনি আবদুল ওয়াহেদ নামের উল্লিখিত ব্যক্তিকে চেনেন না। পরে এএসআই জাকিরকে জিজ্ঞেস করার পর জেনেছেন, জায়গাজমি নিয়ে ভাইয়ে ভাইয়ে বিরোধ। ওই বিরোধের জের ধরে ৯৯৯ নম্বরে এক পক্ষ ফোন করেছে, পরে তাঁদের বিষয়টি নিয়ে আদালতে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এর বেশি আর কোনো কথা হয়নি।

মামলার আবেদনে আবদুল ওয়াহেদ অভিযোগ করেন, চাটখিল উপজেলার বদলকোট মৌজার বিএস ১২৪৬ খতিয়ানের ১০২৮ দাগে তাঁর দখলীয় জায়গা ১৩ জানুয়ারি সকালে প্রতিপক্ষ মো. শহিদুল্লাহ ও মো. পারভেজ দলবল নিয়ে দখল করতে আসেন। তিনি বাধা দিলে প্রতিপক্ষ তাঁকে হুমকি দিয়ে বলে তারা ‘থানা-পুলিশ কন্ট্রাক্ট করে এসেছে, কোন প্রকার বাধা দিলে এখানে লাশ পড়বে।’

আবদুল ওয়াহেদের অভিযোগ, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে তিনি জাতীয় ৯৯৯ নম্বরে ফোন দেন। যার ভিত্তিতে চাটখিল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. ওয়াহেদ ঘটনাস্থলে গেলে দখলকারীরা পালিয়ে যান। পরে একই থানার দুই এএসআই জাকির হোসেন ও মো. সুমন ঘটনাস্থলে গিয়ে তাঁদের ৯৯৯ নম্বরে ফোন করায় নানা হুমকি-ধমকি দেন।
দুই এএসআইয়ের কথা অনুযায়ী কাগজপত্র নিয়ে থানায় গেলে তাঁদের রাত ১০টা পর্যন্ত থানায় বসিয়ে রাখা হয়। আর বিপরীতে প্রতিপক্ষকে রাতের অন্ধকারে জায়গা দখলের সুযোগ করে দেওয়া হয়। প্রতিপক্ষ জেনারেটরের আলোয় জায়গা দখল করে পাকা ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করে। রাতে বাড়িতে এসে দখলের ঘটনা দেখার পর পরদিন পুনরায় থানায় গেলে দুই এএসআই তাঁদের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন।

আদালতের পেশকার মতিউর রহমান জানান, মামলার আবেদনটি পিবিআইকে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। আগামী ১৩ ফেব্রুয়ারি মামলার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন