বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রত্যক্ষদর্শী, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে জহিরুল ইসলামের সঙ্গে তাঁর বড় ভাই নুরুল ইসলামের জমি ও বাড়ির জায়গা নিয়ে বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সম্প্রতি বেশ কয়েকবার ঝগড়া ও বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। সোমবার বেলা ১১টায় আসমা আক্তার দুই সন্তানসহ বসতঘরে অবস্থান করছিলেন। এ সময় নুরুল ইসলাম ও তাঁর লোকজন ওই ঘরের ভেতর ঢুকে আসমাকে রশি দিয়ে বেঁধে শারীরিকভাবে নির্যাতন করেন। একপর্যায়ে তাঁরা ঘরের জানালা-দরজা ও আসবাব ভাঙচুর করে ঘরে রাখা টাকা ও স্বর্ণালংকারও লুট করে নিয়ে যান।

আসমার চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন সেখানে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যান। পরে স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ আসমাকে ওই ঘর থেকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন।

আসমা আক্তার অভিযোগ করেন, জমিজমার বিরোধ ও পূর্বশত্রুতার জেরে তাঁর ভাশুর ও ভাশুরের ভাড়া করা লোকেরা তাঁর ওপর এ নির্যাতন চালিয়ে ভাঙচুর করেন। এ সময় ৫০ হাজার টাকা ও তিন ভরি স্বর্ণালংকার লুটপাটের ঘটনা ঘটিয়েছেন। এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। মামলার প্রস্তুতি চলছে। ঘটনাটির সঙ্গে জড়িত ওই ব্যক্তি ও তাঁর লোকজনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন তিনি।

অভিযোগের বিষয়ে নুরুল ইসলামের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

মতলব দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া বলেন, ঘটনা জানার পর সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে অভিযোগ পেয়েছেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন