মারুকা ইউপির ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. শাহ আলম বলেন, ‘স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভবনটি ৮০–৯০ বছরের পুরোনো। সেখানে একটি নতুন ভবন নির্মাণ এবং চিকিৎসক, স্যাকমো, ফার্মাসিস্ট, নিরাপত্তাপ্রহরীদের নিয়মিত উপস্থিতি নিশ্চিত করতে বহু আন্দোলন, সংগ্রাম ও মানববন্ধন করেছি আমরা। কুমিল্লা জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনকেও জানিয়েছি। ওনারা আশ্বস্ত করেছেন, কিন্তু বাস্তবায়ন করছেন না।’

স্বপাড়া গ্রামের আবুল কালাম খান, আবুল কালাম প্রধান, মো. সুমন মিয়া, হোশনেয়ারা বেগম, মো. শাওন তালুকদার, মো. খোকন, মো. মফিজুল ইসলাম, মো. রাসেল মিয়া, বৃদ্ধা আম্বিয়া খাতুন জানান, এ উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে বিটেশ্বর ও মারুকা ইউনিয়নের কমপক্ষে ১০টি গ্রামের লোকজন নিয়মিত চিকিৎসা নিতে আসে। ছয় থেকে সাত কিলোমিটারের মধ্যে আর কোনো চিকিৎসাকেন্দ্র নেই। তাই জরাজীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রটি নতুন করে নির্মাণ করে সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী জনগণের দুয়ারে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়ার দাবি জানান তাঁরা।

দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. তৌহিদ আল হাসান বলেন, স্বপাড়া উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রটি দীর্ঘদিন ধরে জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে আছে। ছয় মাস ধরে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ায় এটি তালাবদ্ধ রাখা হয়েছে। একটি নতুন ভবন নির্মাণ করে উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রটি পুনরায় চালু করতে সর্বশেষ ২ এপ্রিল জেলা স্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগ ও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন