বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিহত বৃদ্ধার নাম সামিরন বেগম (৫৫)। তিনি মৃত নেহাল মিয়ার স্ত্রী। লাউচাপড়া ডুমুরতলা এলাকার সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পের একটি ঘরে তিনি একা বাস করতেন। সামিরন বেগমের কোনো সন্তান নেই বলে জানা গেছে। তবে শেরপুর জেলায় বেলা আক্তার নামে তাঁর একজন পালক মেয়ে আছেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাতে প্রতিদিনের মতো সামিরন বেগম নিজ ঘরে শুয়ে পড়েন। রাত ১১টার দিকে একদল দুর্বৃত্ত তাঁর ঘরে ঢুকে উপর্যুপুরিভাবে কোপায়। এ সময় সামিরন বেগমের চিৎকার শুনে আশ্রয়ণ প্রকল্পের অন্য বাসিন্দারা তাঁর ঘরের সামনে এসে দেখতে পান ঘরের দরজা ভেতর থেকে লাগানো। একপর্যায়ে দুর্বৃত্তদের দলটি জানালা দিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দারা দুর্বৃত্তদের ধাওয়া করলেও কাউকে ধরতে পারেনি। পরে স্থানীয় লোকজন থানা-পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ঘরের দরজা ভেঙে লাশটি উদ্ধার করে বকশীগঞ্জ থানায় নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে বকশীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম বলেন, এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটনে পুলিশের একাধিক দল মাঠে কাজ করছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে হত্যাকারীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে। এ ঘটনায় ওই নারীর পালক মেয়ে বেলা আক্তার থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। সেটিই মামলা আকারে নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন