default-image

জামালপুরের তিন উপজেলায় এক কলেজছাত্রী, শিশুসহ তিনটি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ বুধবার সকাল থেকে দুপুরের মধ্যে এসব লাশ পুলিশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জামালপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।
মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে মেলান্দহ উপজেলা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় কলেজছাত্রী আকলিমা বেগম (১৭), সদর উপজেলা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় নজরুল ইসলাম (৩২) নামের এক শ্রমিকের লাশ এবং ইসলামপুর উপজেলায় যমুনা নদী থেকে ১০ বছর বয়সী অজ্ঞাতনামা এক শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়। জেলা সদর, ইসলামপুর ও মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) কার্যালয় সূত্র এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, আজ সকালে মেলান্দহ উপজেলার ফুলকোচা ইউনিয়নের তেলিপাড়া গ্রামে ঝুলন্ত অবস্থায় কলেজছাত্রী আকলিমা বেগমের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়। ওই ছাত্রী উপজেলার হাজরাবাড়ী সিরাজুল হক ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণিতে অধ্যয়নরত ছিল। তার বাবার নাম আলেফ উদ্দিন। তার পরিবার মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে কিছুই বলতে পারেনি।

জামালপুর পৌরসভার ছনকান্দা এলাকার ওমর আলীর বাড়ির পাশে একটি গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় নজরুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি শেরপুর সদর উপজেলার বলাইয়ের চরের দুলাল মিয়ার ছেলে। তিনি একটি কারখানার শ্রমিক ছিলেন। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার রাতে তিনি শ্বশুরবাড়ি ছনকান্দায় গিয়ে জানতে পারেন, স্ত্রী তাঁকে তালাক দিয়েছেন। বুধবার ভোররাতে ওই বাড়ির পাশে একটি গাছের সঙ্গে গলায় রশি প্যাঁচানো ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয় লোকজন থানায় খবর দেন। তাঁর লাশটি পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে।

বুধবার দুপুরে ইসলামপুর উপজেলার চিনাডুলী ইউনিয়নের যমুনা নদীতে ভাসমান অবস্থায় ১০ বছর বয়সী অজ্ঞাতপরিচয়ের এক শিশুর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরে লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0