বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্বতন্ত্র প্রার্থী রফিকুল ইসলাম মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘ভোট ভালোই চলছিল। সকাল সাড়ে নয়টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান আকন্দের নেতৃত্বে লাঠিসোঁটা নিয়ে আমার সব এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। এতে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়ায়। পরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহযোগিতায় এজেন্টদের আগের জায়গায় ফেরানো হয়।’

অভিযোগের বিষয়ে নৌকার প্রার্থী আয়ুব আলী খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘স্বতন্ত্র প্রার্থীর অভিযোগ মিথ্যা। এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি।’

কেন্দ্রটির প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মো. ইলিয়াস সাংবাদিকদের বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থীর এজেন্টদের নিয়ে একটু সমস্যা হয়েছিল। পরে তা সমাধান হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন