default-image

জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলায় সাত বছরের শিশুকে ধর্ষণের দায়ে এক তরুণকে সশ্রম যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাঁকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জামালপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১–এর বিচারক জেলা জজ এম আলী আহমেদ আজ সোমবার দুপুরে এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত তরুণের নাম মো. সাইফুল ইসলাম (২০)। তিনি জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার মোহাম্মদপুর পশ্চিমপাড়া এলাকার মো. সাহার আলীর ছেলে। তিনি স্থানীয় একটি মসজিদে ইমামতি করতেন।

ঘটনা ২০১৮ সালের ১৮ নভেম্বরের। ওই দিন সকাল আটটার দিকে ওই তরুণ তাঁর ঘর পরিষ্কার করার কথা বলে শিশুটিকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যান। এ সময় শিশুটিকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন তিনি।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণী ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ১৮ নভেম্বর ভোরে ওই তরুণের কাছে ভুক্তভোগী শিশুটি (৭) কায়দা পড়তে গিয়েছিল। পড়া শেষ করে শিশুটি বাড়িতে চলে আসে। পরে ওই দিন সকাল আটটার দিকে ওই তরুণ তাঁর ঘর পরিষ্কার করার কথা বলে শিশুটিকে বাড়ি থেকে আবার ডেকে নিয়ে যান। এ সময় শিশুটিকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন তিনি। শিশুটি রক্তাক্ত অবস্থায় কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে আসে। স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় পরিবারের সদস্যরা শিশুটিকে প্রথমে ইসলামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। ঘটনার চার দিন পর ২০১৮ সালের ২২ নভেম্বর শিশুটির বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন। ওই মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে আজ দুপুরে আসামিকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। একই সঙ্গে তাঁকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে আরও ৩ মাসের বিনা শ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন জামালপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১–এর সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) মো. আকরাম হোসেন। আসামিপক্ষে ছিলেন মো. আবদুল্লাহ।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন