বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিহত দুজন হলেন মা জয়ফল বেগম (৫০) ও তাঁর মেয়ে স্বপ্না আক্তার (২৭)। জয়ফলের তিন ছেলে ও এক মেয়ে। এর মধ্যে মিলন চৌধুরী ও মিস্টার চৌধুরী ওমানপ্রবাসী। আরেক ছেলে জহুরুল চৌধুরী ও তাঁর স্ত্রী জেসমিন বাড়িতেই থাকেন। হত্যাকাণ্ডের দিন জহুরুল ও তাঁর স্ত্রী বাড়িতে ছিলেন না। তবে পুলিশ তাঁদের দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গতকাল রাতেই আটক করেছে।

নিহত জয়ফলের ছোট ভাই সোনা মিয়া প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর বোনের একমাত্র মেয়ে স্বপ্নার বিয়ে হয়েছিল যশোরে। দুই বছর আগে স্বামীর সঙ্গে তাঁর তালাক হয়। এর পর থেকে স্বপ্না মায়ের সঙ্গেই থাকেন।

মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এম এম ময়নুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডের এখনো কোনো সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। জয়ফলের ছেলে ও পুত্রবধূকে জিজ্ঞাসাবাদ করেও কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

জামালপুরের সহকারী পুলিশ সুপার (মাদারগঞ্জ ও মেলান্দহ সার্কেল) সজল কুমার সরকার প্রথম আলোকে বলেন, বিভিন্ন তথ্যের সূত্র ধরে তদন্ত চলছে। দ্রুত সময়ের মধ্যেই হত্যাকাণ্ডে জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে এ ঘটনায় মামলা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন