পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পানি পরিমাপক (গেজ রিডার) আবদুল মান্নান আজ সকাল ৯টার দিকে বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনার পানি ১৩ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপৎসীমার ২৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে নদীর তীরের নিম্নাঞ্চলে পানি ঢুকতে শুরু করেছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত আছে। এতে নিম্নাঞ্চলগুলো প্লাবিত হতে শুরু হয়েছে।

ইসলামপুর উপজেলার পশ্চিম বলিয়াদহ গ্রামের মামুনুর অর রশিদ বলেন, পানি বাড়ির আঙিনায় আসছে। খুব ধীরগতিতে পানি বাড়ছে। লোকজন আতঙ্কে আছে। তবে এখনো লোকজন পুরোপুরি পানিবন্দী হয়ে পড়েনি। নদীর তীর বা চরাঞ্চলের কিছু কিছু ঘরবাড়িতে পানি উঠছে। তবে বিভিন্ন সড়ক ও সেতু এলাকা দিয়ে পানি ঢুকছে গ্রামের ফসলের মাঠগুলোয়। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে, দুয়েক দিনের মধ্যে মানুষ পুরোপুরি পানিবন্দী হয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে।

ইসলামপুরের চিনাডুলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুস সালাম বলেন, ইউনিয়নটি বন্যাকবলিত। প্রতিবছর পুরোপুরি বন্যাকবলিত হয়। গত দুই দিনে ইউনিয়নের বেশির ভাগ গ্রামে পানি ঢুকছে। তবে কিছু বাসিন্দা পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। পানি বাড়তে থাকলে পুরো ইউনিয়নের মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়বে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন