default-image

বিএনপি তাদের মিত্র জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসী চট্টগ্রামে জড়ো করছে বলে অভিযোগ করেছেন নগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন। আজ রোববার রাতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এম রেজাউল করিম চৌধুরীর বহদ্দারহাটের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ করা হয়।

কামাল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, ‘বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া চট্টগ্রামে নির্বাচনের পরিবেশ এখনো ভালো আছে। আমাদের কাছে খবর আছে, পরিবেশ নষ্ট করার জন্য পায়ের তলায় মাটি হারানো বিএনপি তাদের মিত্র জামায়াত-শিবির, বিএনপির সশস্ত্র ক্যাডার, দাগি আসামিদের নগরে জড়ো করছে। যারা অতীতে পেট্রলবোমা ছুড়েছে, সেই সন্ত্রাসীদের জড়ো করে নির্বাচনের আগে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করছে। সন্ত্রাসী কার্যক্রম করে চট্টগ্রামকে আতঙ্কের শহরে পরিণত করার পাঁয়তারা করছে, যাতে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা যায়। দোষ সরকারি দলের ওপর দেওয়া যায়।’

বিজ্ঞাপন

কামাল হোসেন আরও বলেন, ‘ইভিএম পদ্ধতিতে কোনো রকম সিল মারার কোনো ব্যাপার নেই। সেই ইভিএম পদ্ধতিকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছেন বিএনপি প্রার্থী। কারণ, তিনি হেরে যাবেন। আমরা চাই নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হোক। কোনো সন্ত্রাসী যেন নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে না পারে।’

এক প্রশ্নের জবাবে এস এম কামাল হোসেন বলেন, ‘চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ এত দুর্বল নয় যে বাইরে থেকে লোক নিয়ে আসতে হবে। চট্টগ্রামের মানুষ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে, নৌকার পক্ষে। নৌকা দেখলে মানুষ বসে থাকতে পারে না।’

সংবাদ সম্মেলনে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ সালাম, আওয়ামী লীগের নগর কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন, নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী, শফিক আদনান, চন্দন ধর, মশিউর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

একই বিষয়ে নগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, ‘চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ কতটা আছে, তার বড় সাক্ষী আপনারা। আমাদের উত্তর–দক্ষিণ লাগে না।’

আওয়ামী লীগের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি প্রার্থী শাহাদাত হোসেনের প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট আবুল হাশেম বক্কর বলেন, আওয়ামী লীগ নিজেরা বিভিন্ন জেলা থেকে সন্ত্রাসী এনে ভোট ডাকাতির প্রস্তুতি নিয়েছে। বিএনপির বিরুদ্ধে করা এই অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন