default-image

রোববার সকালে নাটোরের সিংড়া উপজেলার বিষ্ণুপুর ইটালী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) এক সদস্য জুতা পায়ে শহীদ মিনারে উঠে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। জুতা পায়ে শহীদ বেদিতে ওঠার এই ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়।

সকালে উপজেলার বিষ্ণুপুর ইটালী মডেল হাইস্কুলে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষাশহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদন করতে বেদিতে জুতা পায়ে ওঠেন প্রধান শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান, দুজন সহকারী শিক্ষক জাকির হোসেন ও মশিউর রহমান। ছবিতে জুতা পায়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায় প্রতিষ্ঠানের সভাপতি আবদুল আজিজ ও একই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জুলফিকার আলীকে। ফুল দেওয়ার সময় জুতা পায়ে তাঁরা নিজ নিজ মুঠোফোনে ছবি তোলেন। প্রায় ১০ মিনিট এভাবে শহীদ মিনারের পবিত্রতা নষ্ট করা হয়। পরে বিষ্ণুপুর ইটালী মডেল হাইস্কুলের ফেসবুক পেজে ছবিগুলো পোস্ট করা হয়। সেখান থেকে বিভিন্ন ব্যক্তি ছবিগুলো নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দিলে কয়েকটি ছবি ভাইরাল হয়।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান বলেন, অসচেতনভাবে ঘটনাটি ঘটেছে। আর নির্মাণাধীন শহীদ মিনার হওয়ায় সেখানে ধুলাবালি ছিল তাই জুতা পায়ে উঠেছেন তাঁরা।
বিদ্যালয়ের সভাপতি আবদুল আজিজ বলেন, তিনি স্থানীয় একটি ইসলামি জলসা নিয়ে ব্যস্ত থাকায় টেনশনে ঘটনাটি ঘটেছে।

সিংড়া উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আমিনুর রহমান বলেন, জুতা পায়ে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়ার বিষয়টি তিনি শুনেছেন। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন