default-image

নারায়ণগঞ্জ শহরের পশ্চিম তল্লা এলাকায় ফ্ল্যাটে বিস্ফোরণের ঘটনায় দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন। একই সঙ্গে ওই ভবনের বাসিন্দাদের সরিয়ে দিয়ে ভবনটি সিলগালা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ্ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি বলেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রহিমা আক্তারকে আহ্বায়ক ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আরিফা জহুরাকে সদস্যসচিব করে সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। তদন্ত কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জেলা প্রশাসকের পরিদর্শনের সময় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আরিফা জহুরা, ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রকিবুজ্জামানসহ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, তিতাস গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের কর্মকর্তাসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ্ প্রথম আলোকে বলেন, দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আহবায়ক করে সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত ভবন থেকে সব বাসিন্দাকে সরিয়ে ভবনটি সিলগালা করে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অগ্নিদগ্ধ ব্যক্তিদের সরকারি বিধি অনুযায়ী সহায়তা করা হবে। তিনি বলেন, বিশেষজ্ঞদের মতামতের ভিত্তিতে পরে ভবনটি খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

default-image

আজ শুক্রবার সকাল পৌনে ছয়টার দিকে শহরের পশ্চিম তল্লা এলাকায় তিনতলা ভবনের তিন তলার ফ্ল্যাটে গ্যাসের লিকেজ থেকে জমে থাকা গ্যাস বিস্ফোরণে ১ শিশুসহ দুটি পরিবারের ১১ জন দগ্ধ হয়। তাদের মধ্যে শিশুসহ পাঁচজনকে রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্ট্রিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।

বিস্ফোরণের ঘটনায় ওই ফ্ল্যাটের দুটি কক্ষের দেয়াল উড়ে গিয়ে পাশের দোতলা ভবনের ছাদে পড়ে। বিস্ফোরণে ভবনের বিভিন্ন ফ্ল্যাটের দরজা-জানালার কাচ ভেঙে গেছে। এ ছাড়া পাশের দোতলা ভবনের দরজা-জানালা ও দেয়ালে ফাটল দেখা দেয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন