বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হিলি ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেকেন্দার আলী ভারতের হিলি ইমিগ্রেশন কর্মকর্তার কাছে তাঁকে হস্তান্তর করেছেন। রাজপুত চন্দ্রভান ভারতের গুজরাটের আহমেদাবাদ রামল থানার বিনোভা বায়োনাগর গ্রামের ললতা সিংয়ের ছেলে। একই দিনে ঐশী রায় (২২) ও গুলশান বিবি (৪৫) নামের আরও দুজনকে কারাভোগ শেষে ভারতে পাঠানো হয়েছে।

ঐশী রায় বাকুড়া পশ্চিমবঙ্গ জেলার মেদেনীপুর থানার দমদম এলাকার মৃত শেখর রায়ের মেয়ে। ২০১৮ সালে ঐশী মামার সঙ্গে বাংলাদেশে বেড়াতে আসেন। পাসপোর্ট না থাকায় পরে তিনি আটক হয়ে দিনাজপুর জেলা কারাগারে ছিলেন। এদিকে গুলশান বিবি দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর থানার দাইনুর তেলিপাড়া গ্রামের মনসুর আলীর স্ত্রী। তিনি দিনাজপুরের খানপুর সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে প্রবেশ করার সময় বিজিবির হাতে আটক হন। এরপর তিনি ১১ মাস সাজাভোগ করেন।

ওসি সেকেন্দার আলী বলেন, অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে ওই তিন ভারতীয় নাগরিককে আটক করে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়েছিল। সাজার মেয়াদ শেষ হওয়ায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করা হয়েছে। সেখান থেকে ভারতীয় দূতাবাসে যোগাযোগ করা হলে আজ তাঁদের দেশে ফেরত পাঠানোর তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

দিনাজপুর জেলা কারাগারের ডেপুটি জেলার আতিকুর রহমান জানান, সাজার মেয়াদ শেষ হওয়ায় ওই তিন ভারতীয় নাগরিককে ভারতের হিলি ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা শিপ্রা রায়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন