default-image

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় মাদক সেবন করে একটি বাড়িতে জোর করে ঢোকার সময় এক যুবলীগ নেতাকে আটক করেন স্থানীয় জনতা। পরে তাঁকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। আজ বুধবার দুপুরে তাঁকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেপ্তার হওয়া ছাত্রলীগ নেতার নাম সুলতান মাহমুদ ওরফে সুজন (২৭)। তিনি উপজেলার গোসাইবাড়ি ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি উপজেলার পশ্চিম গুয়াডহরী গ্রামের বাসিন্দা।

এ সম্পর্কে ধুনট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন বলেন, সুলতান মাহমুদকে মাদক সেবনের অভিযোগে করা মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার রাত নয়টার দিকে গোসাইবাড়ি সাতমাথা এলাকায় জনতার হাত থেকে তাঁকে উদ্ধার করে থানায় আনা হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সন্ধ্যার দিকে সুলতান মাহমুদ গোসাইবাড়ি সাতমাথা এলাকায় এক স্কুলছাত্রীর বাড়িতে মাতাল অবস্থায় জোর করে ঢোকার চেষ্টা করেন। এ সময় স্থানীয় লোকজন তাঁকে বাধা দেয়। এতে তিনি মাতাল অবস্থায় গালিগালাজ করতে থাকেন। স্থানীয় লোকজন তাঁকে আটক করে রাখেন। খবর পেয়ে থানা-পুলিশ সেখান থেকে সুলতানকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়

বিজ্ঞাপন

তবে গতকাল রাতে সুলতান মাহমুদ দাবি করেন, ‘আমার ছোট ভাই দেশের বাইরে চাকরি করছে। পরিবারের সম্মতিক্রমে ওই স্কুলছাত্রীর সঙ্গে আমার ভাইয়ের বিয়ের কথা চলছে। ওই বিষয়ে কথা বলতে স্কুলছাত্রীর বাড়িতে গিয়েছিলাম। কিন্তু ওই বাড়ির লোকজন আমাকে ঢুকতে না দিয়ে আটকে রেখে মারধর করেছে।’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শেরপুর-ধুনট সার্কেল) গাজীউর রহমান বলেন, স্কুলছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ করা হয়নি। সুলতান মাহমুদের বিরুদ্ধে মাদক সেবনের অভিযোগে মামলা করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0