default-image

জ্বর ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার এক সবজি ব্যবসায়ী মারা গেছেন। আজ শুক্রবার সকালে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ ঘটনায় ওই ব্যবসায়ীর বাড়িসহ চারটি বাড়ি লকডাউন করেছে উপজেলা প্রশাসন।

ওই ব্যক্তির বাড়ি মহম্মদপুর উপজেলায়। গতকাল বৃহস্পতিবার জ্বর, সর্দি, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ বিষয়ে মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোকছেদুল মোমিন জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তি গতকাল সকালে প্রথমে জ্বর, সর্দি, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন। তাঁকে আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছিল। প্রাথমিক চিকিৎসায় জ্বর, সর্দি ও কাশি নিয়ন্ত্রণ হলেও শ্বাসকষ্ট বাড়তে থাকে। এমন পরিস্থিতিতে আজ সকাল সাতটায় তাঁকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে মারা যাওয়ার পর আজ দুপুর ১২টার দিকে তাঁর লাশ তাঁর বাড়িতে আনা হয়। করনোভাইরাসের শনাক্তকরণ পরীক্ষার জন্য তাঁর নমুনা সংগ্রহ করতে তাঁর বাড়িতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে স্বাস্থ্যকর্মীদের পাঠানো হয়েছে।

default-image

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক সাইদুর রহমান জানিয়েছেন, মহম্মদপুর থেকে আসা ওই ব্যক্তির শ্বাসকষ্ট ছিল। তবে জ্বর, সর্দি বা কাশি বা করোনার অন্য উপসর্গ না থাকায় তাঁকে সাধারণ ওয়ার্ডে ভর্তির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কিন্তু ওয়ার্ডে পৌঁছানোর আগেই সকাল নয়টার দিকে তাঁর মৃত্যু হয়।

এ ব্যাপারে মহম্মদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিজানূর রহমান বলেন, ইতিমধ্যে ওই ব্যক্তির বাড়িসহ চারটি বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগ ও প্রশাসনের লোকজন তাঁর ব্যাপারে আরও তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা করছেন। পরিস্থিতি অনুযায়ী পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0