বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শৈলকুপার থানার উপপরিদর্শক মো. আমিরুজ্জামান বলেন, গত ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় সারুটিয়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ প্রার্থী মাহমুদুল হাসান ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জুলফিকার কায়সারের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে কাতলাগাড়ি বাজারে সংঘর্ষ হয়। এতে পাঁচজন আহত হন। আহত ব্যক্তিদের মধ্যে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে ওই দিনই হারান আলীর মৃত্যু হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় অখিল সরকারকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ দুপুরে অখিল সরকার মারা যান।

এ ছাড়া ১ জানুয়ারি নির্বাচনী সহিংসতার সময় ছুরিকাঘাতে জসিম উদ্দিন নামের একজনের মৃত্যু হয়েছে। তবে আজ সারুটিয়া ইউপিতে কোনো ধরনের সহিংসতা ছাড়াই ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন