মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, ২০১৭ সালের ২৩ আগস্ট রাতে বাসাইল উপজেলার করাতিপাড়া গ্রামে বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল আজাদের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় ডাকাত দল গ্রিল কেটে ঘরে ঢুকে আবুল আজাদ ও তাঁর স্ত্রী শামীমা আজাদকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে। পরে তারা ১৪ ভরি স্বর্ণালংকারসহ ৭ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নেয় বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

ঘটনার পরদিন আবুল আজাদ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে বাসাইল থানায় ডাকাতি মামলা করেন। এরপর ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে পুলিশ সম্রাট ও সুজনকে আটক করে। পরে তাঁরা ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন। তদন্ত শেষে বাসাইল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ২০১৮ সালের ১ এপ্রিল আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন।

টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত সরকারি কৌঁসুলি মনিরুল ইসলাম খান বলেন, মামলা চলাকালে আসামিরা সবাই জামিন পাওয়ার পর পালিয়ে গিয়েছিলেন। মফিদুল ও রুপনকে কয়েক মাস আগে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। রায় ঘোষণার সময় এ দুজন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। পরে তাঁদের টাঙ্গাইল জেলা কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। বাকি পাঁচ আসামি এখনো পলাতক।

মামলার বাদী আবুল আজাদ বলেন, এ রায়ে তিনি সন্তুষ্ট। পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তার করে সাজার আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন