বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯২ সালে ২৩ বছর বয়সে ভুবনকুড়া ইউপিতে প্রথমবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এম সুরুজ মিয়া। এরপর তিনি টানা ৩০ বছর ধরে চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর পাশাপাশি তিনি হালুয়াঘাটের কডইতলী স্থলবন্দরের আমদানিকারক সমিতির সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

ফল ঘোষণার পর সুরুজ মিয়া বলেন, ‘আমার প্রতি দলের আস্থা ও মানুষের ভালোবাসা আছে। ভোটাররা বারবার আমাকে নির্বাচিত করেন। আমি তাঁদের ভালোবাসা ও বিশ্বাস রক্ষায় কাজ করে চলেছি। আমি সব ভোটার ও দলের নেতা-কর্মীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। এ বিজয় সাধারণ মানুষের বিজয়।’

উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চেয়ারম্যান পদে জুগলী ইউপিতে ছামাদুল ইসলাম, গাজীর ভিটাতে আবদুল মান্নান, ধারা ইউপিতে তোফায়েল আলম ও ধুরাইলে ওয়ারিছ উদ্দিন জয়ী হয়েছেন। তাঁরা আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে স্বদেশী ইউপিতে মো. ইরাদ হোসেন সিদ্দিকী, নড়াইলে আনোয়ার হোসেন জয় পেয়েছেন। স্বতন্ত্র হিসেবে বিলডোরা ইউপিতে সাবজাল হোসেন খান, সাকুয়াইতে ইউনুস আলী খান ও আমতৈলে শফিকুর রহমান বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জন কেনেথ বলেন, সুষ্ঠুভাবে ভোট সম্পন্ন হয়েছে। ১০ ইউপিতে ৫২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন