স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সিলেটের চন্দনটুলা এলাকায় ওঁরাও সম্প্রদায়ের বসবাস। সেখানকার টিলা ও সমতলবেষ্টিত এলাকার জমি প্রভাবশালী কয়েকজন দখলের পাঁয়তারা করে আসছেন। এ নিয়ে একাধিক মামলা-মোকদ্দমাও রয়েছে। এর মধ্যেই কয়েক দিন ধরে ওঁরাও সম্প্রদায়ের বাসিন্দাদের ঘরবাড়ি-সংলগ্ন চন্দনটুলার টিলার মাটি দিনে ও রাতের বিভিন্ন সময় কাটা হচ্ছিল। যাঁরা মাটি কাটছেন, তাঁরা সরকারদলীয় রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তাঁরা আশপাশের এলাকার বাসিন্দা।

গত কয়েক দিনের মতো শুক্রবার দুপুরে ১৫-২০ জন টিলার মাটি কাটতে আসেন। এ সময় ওঁরাও সম্প্রদায়ের সদস্যরা বাধা দিলে তাঁদের ওপর মাটি কাটতে আসা ব্যক্তিরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালান। এতে চারজন আহত হন। পরে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে ফোন দিলে ঘটনাস্থলে শাহপরান (রহ.) থানার একদল পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ বিষয়ে ওরাং সম্প্রদায়কে থানায় অভিযোগ দিতে পরামর্শ দিয়েছে পুলিশ।

আহত ব্যক্তিদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়। তবে রিপন ওরাংয়ের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাঁকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চন্দনটুলার বাসিন্দা মিলন ওরাং প্রথম আলোকে বলেন, টিলার মাটি কাটতে বাধা দেওয়ায় ভূমিখোকো চক্র তাঁদের ওপর হামলা চালিয়েছে। দিনে ও রাতের বিভিন্ন সময় চক্রটি টিলার মাটি কাটছিল। মাটি কাটতে কাটতে টিলাটি প্রায় সাবাড় করে ফেলা হয়েছে। কয়েক দিন ধরে তাদের নিষেধ করা হচ্ছিল। ওঁরাও সম্প্রদায়ের জমি দখল করতে একটি চক্রটি বহুদিন ধরে পাঁয়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। এসব ঘটনায় মামলা চলমান। এ নিয়ে একাধিকার হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে ওই চক্র।

সিলেট মহানগর পুলিশের শাহপরান (রহ.) থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আনিসুর রহমান বলেন, খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। মাটি কাটতে বাধা দেওয়ায় হামলা চালানো হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। পুলিশের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। অভিযোগ পাওয়ার পর আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে। তবে হামলার ঘটনায় পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে বলে জানান ওসি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন