বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গতকাল রাতে হাজমপাড়া এলাকায় প্রতিদ্বন্দ্বী মোটরসাইকেল প্রতীকের সমর্থকেরা নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর প্রচারণার গাড়িটি পথ রোধ করে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেন। একই দিন রাতে তুলাতুলি এলাকায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর আরেকটি গাড়ি প্রচারণার কাজ করছিল। এ সময় আরেক প্রতিদ্বন্দ্বী আনারস প্রতীকের সমর্থকেরা দেশি অস্ত্র দা, কিরিচ, লোহার রড ও লাঠিসোঁটা নিয়ে প্রচার গাড়িতে হামলা চালান। এতে নৌকার সমর্থকেরা আহত হয়েছেন।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবু ছৈয়দ বলেন, ‘আমার বিজয় সুনিশ্চিত ও গণজোয়ার দেখে অপর দুই প্রার্থী হিংসার বশবর্তী হয়ে সমর্থক ও ভোটারদের হুমকি দিয়ে আসছেন। তারই অংশ হিসেবে প্রচারণা গাড়িতে হামলা চালানো হয়েছে। এ ঘটনায় দুই স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী জিয়াউর রহমান ও শাহাজান মিয়াকে প্রধান আসামি করে কয়েকজনের বিরুদ্ধে পৃথকভাবে থানায় দুটি অভিযোগ করা হয়েছে।’

default-image

তবে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে স্বতন্ত্র প্রার্থী জিয়াউর রহমান ও শাহাজান মিয়া বলেন, যে যার মতো করে নির্বাচনে প্রচারণা নিয়ে ব্যস্ত। সরকারদলীয় প্রার্থী তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে তাঁদের সমর্থকদের হয়রানি ও নির্বাচনের প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছেন। মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে ভোটারদের মন জয় করা যায় না। নির্বাচনের ফায়দা লোটার জন্য এই মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে। ব্যালটের মাধ্যমে এসব মিথ্যা অভিযোগের প্রমাণ দেবেন ভোটাররা।

এদিকে হামলার বিষয়ে জানতে চাইলে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাফিজুর রহমান বলেন, পৃথক দুটি হামলার ঘটনায় নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীর দুটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় পুলিশ তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবে।

আগামীকাল সোমবার টেকনাফ সদর ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই ইউনিয়নে মোট ১২ হাজার ৮১৭ নারী ও ১৩ হাজার ৯৭৭ জন পুরুষ ভোটার আছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন