default-image

কক্সবাজারের টেকনাফে ডাকাতের গুলিতে মোহাম্মদ হোসেন (৩০) নামে একজন নিহত হয়েছেন। একই ঘটনায় একজন রোহিঙ্গা শরণার্থী ও একজন স্থানীয় বাসিন্দা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাত আটটার দিকে উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের দমদমিয়া নেচারপাক ও জাদিমোরা ২৭ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবিরের ক্যাম্প ইনচার্জের কার্যালয়-সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মোহাম্মদ হোসেন উপজেলা হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোরা এলাকার বাচা মিয়ার ছেলে। গুলিবিদ্ধ অন্য দুজন হলেন উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোরা ২৭ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবিরে সি ব্লকের ৮-এর বাসিন্দা গোলাম মুজিবের ছেলে মোহাম্মদ আয়াজ (১৯) ও দমদমিয়া এলাকার মৃত মো. ইমানের ছেলে রশিদুল্লাহ (৪২)।

বিজ্ঞাপন

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ বলছে, রোহিঙ্গা ডাকাত জকির গ্রুপের সদস্যরা পার্শ্ববর্তী পাহাড় থেকে নেমে এসে হ্নীলা ইউনিয়নের দমদমিয়া নেচারপাক ও জাদিমোরা ২৭ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবিরের ক্যাম্প ইনচার্জের কার্যালয়-সংলগ্ন এলাকায় একজনকে অপহরণের চেষ্টা করছিল। এ সময় স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এলে ডাকাতেরা এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। এতে তিনজন গুলিবিদ্ধ হন। পরে স্থানীয় লোকজন গুলিবিদ্ধ মোহাম্মদ হোসেন ও আয়াজকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

ঘটনার পর টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আব্দুল্লাহ আল মামুন প্রথম আলোকে বলেন, গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দুজনকে হাসপাতালে আনা হয়। এর মধ্যে মোহাম্মদ হোসেনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তার বুকে গুলি লেগেছে। অপরজন রোহিঙ্গা নাগরিক আয়াজের মুখে ছড়রা গুলি লেগেছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাঁদের কক্সবাজার হাসপাতালে পাঠানো হয়।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো হাফিজুর রহমান বলেন, ওই ঘটনায় তিনজন গুলিবিদ্ধ হওয়ার কথা শোনা গেলেও দুজনকে টেকনাফ হাসপাতালে আনা হয়। পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের নেওয়ার পর রাত ১১টার দিকে মোহাম্মদ হোসেন মারা যান। লাশটি মর্গে নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন