বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ফরিদ মিয়া ঢাকার ডেমরায় ব্যবসা করেন। সেখানে পরিবারসহ থাকতেন। পরিবারের সদস্য ও বেশ কয়েকজন স্বজনকে নিয়ে গতকাল বেলা তিনটার দিকে ঢাকা থেকে দাউদকান্দির ট্রলারঘাটে নামেন তাঁরা। ট্রলারে করে তাঁরা অসুস্থ এক স্বজনকে দেখতে কুমিল্লার তিতাস উপজেলার দড়িগাঁও গ্রামে যাচ্ছিলেন। ট্রলারটি মেঘনা নদীর চরকাঁঠালিয়া গ্রামের কাছে পৌঁছালে পেছনের ইঞ্জিনের পাখা ভেঙে পানি ঢুকে ট্রলার ডুবে যায়। এতে ঘটনাস্থলে ফরিদ মিয়ার দুই মেয়ে ও শাশুড়ি মারা যান। নিখোঁজ ছিল তাঁর অপর মেয়ে তামান্না। পরে তিনজনের লাশ উদ্ধার করে দাউদকান্দির এলহাম হাসপাতালে রাখা হয়।

মেঘনা নৌ পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ইঞ্জিনচালিত ট্রলারটির পেছনের ইঞ্জিনের পাখা ভেঙে পানি ঢুকে ডুবে যায়। এ ঘটনায় নানি ও তাঁর তিন নাতনির মৃত্যু হয়েছে।

মেঘনা থানার নৌ পুলিশের পরিদর্শক মো. আবদুল্লাহ বলেন, খবর পেয়ে মেঘনা নৌ পুলিশ ও দাউদকান্দি ফায়ার সার্ভিসের ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার তৎপরতা চালায়। দুর্ঘটনাকবলিত ট্রলারটি উদ্ধার করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন