বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, স্কুলশিক্ষক সেলিনা আক্তারের স্বামী শামীম আহমেদ একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। এই দম্পতির ১০ বছরের তানভীর নামের একটি শিশুসন্তান রয়েছে। সেলিনা আক্তার চিকিৎসককে দেখাতে মঙ্গলবার বরিশালে যান। সঙ্গে নিয়ে যান স্বামী শামীম আহমেদ ও শিশুসন্তান তানভীরকে। পরে এই তিনজন নিজেদের মোটরসাইকেলে করে বরিশাল থেকে পটুয়াখালীতে ফিরছিলেন। সন্ধ্যার দিকে মোটরসাইকেলটি লেবুখালী ফেরিঘাটের কাছাকাছি স্থানে পৌঁছায়। এ সময় বিপরীত দিকে থেকে আসা একটি ট্রাক মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দেয়। এতে মোটরসাইকেলের পেছনে বসা সেলিনা আক্তার ছিটকে সড়কে পড়েন। ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। সামান্য আঘাত পাওয়া শামীম ও তানভীরকে স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

দুমকি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী হাসান বলেন, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়েছিল। তারা ট্রাকটি জব্দ করেছে। তবে ট্রাকের চালক ও তাঁর সহকারী পালিয়ে গেছেন। লাশ আজ বুধবার সকালে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। মামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন