default-image

সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় ট্রাক ও পিকআপ ভ্যানের সংঘর্ষে দুই শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন অন্তত ২২ জন। আজ শনিবার ভোর পাঁচটার দিকে উপজেলার শুভাষিনী কলেজের পাশে সাতক্ষীরা-খুলনা মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত দুই শ্রমিক হলেন সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার জাফরপুর গ্রামের মুন্না কারিকর (৩৫) ও আশাশুনি উপজেলার বড়দল গ্রামের শফিকুল ইসলাম (৫০)। আহত ব্যক্তিরা হলেন কালীগঞ্জ উপজেলার জাফরপুর গ্রামের মাহতাব উদ্দিন (৫০), মফেল মোল্লা (৬০), বাবর আলী (৫২), একই উপজেলার তারালী গ্রামের কৃষ্ণপদ মণ্ডল (২৭), খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার শ্রীকণ্ডপুরের মো. আবদুস সালাম সানা (৫০), তাঁর মেয়ে ফাতেমা (১৭), সাতক্ষীরা সদরের বাউখোলা গ্রামের আসাদুল ইসলাম, কালীগঞ্জ উপজেলার জাফরপুর গ্রামের শাহজামাল (২৫), মামুন হোসেন (১৭), ইউনুছ আলী (৩৫), সুমন হোসেন (২১), আব্বাস আলী বিশ্বাস (৬০) ও মো. আশরাফুল ইসলাম (১৮)। তাঁদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহত অন্যদের নাম প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি।

বিজ্ঞাপন

সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কালীগঞ্জ উপজেলার তারালী গ্রামের বিশ্বনাথ মণ্ডল জানান, আজ ভোরে তাঁদের বহনকারী পিকআপ ভ্যানটি শুভাষিনী কলেজের পাশে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে পিকআপটি উল্টে বিলের মধ্যে পড়ে গেলে ঘটনাস্থলেই মারা যান শফিকুল ও মুন্না। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ১৩ জনকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ও ৯ জনকে স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, ৩ এপ্রিল ২৮ জন শ্রমিক মাদারীপুরে এক ঠিকাদারের রাস্তার কাজ করতে যান। করোনা পরিস্থিতির কারণে কাজ বন্ধ থাকায় ২৪ জন একসঙ্গে একটি পিকআপে করে বাড়ি ফিরছিলেন।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রওশান গাইন বলেন, পাঁচজনের প্রচণ্ড বমি হওয়ায় তাঁদের সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। অন্য আটজনের স্বজনেরা করোনার ভয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে না জানিয়েই কৌশলে বাড়িসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে তাঁদের নিয়ে গেছেন।
তালা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী রাসেল বলেন, নিহত দুজনের লাশ উদ্ধার করে তাঁদের স্বজনদের কাছ দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন