default-image

কুষ্টিয়ায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের হওয়া মামলায় এক কলেজশিক্ষককে এক দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে রিমান্ড শুনানি শেষে কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রেজাউল করিম এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে কুষ্টিয়া মডেল থানার উপপরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মাসুদ রানা পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেছিলেন। আসামি আ ফ ম রাজিবুল আলম (৫২) পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার পিয়ারখালী গ্রামের নুরুল আলমের ছেলে। তিনি একই উপজেলার পাকশী রেলওয়ে কলেজের আইসিটির শিক্ষক।

মামলার এজাহার ও আদালত সূত্র জানায়, গত ডিসেম্বর মাসে কুষ্টিয়া শহরের পাঁচ রাস্তার মোড়ে নির্মাণাধীন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙচুর করা হয়। এ ঘটনায় পাকশী রেলওয়ে কলেজের প্রভাষক সাদ আহম্মেদ তাঁর ফেসবুক আইডিতে একটি লেখা পোস্ট করেন। ওই পোস্টে রাজিব আলম (আ ফ ম রাজিবুল আলম) একটি মন্তব্য করেন। তাতে কুষ্টিয়া-৩ (সদর) আসনের সাংসদ ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফের চাচাতো ভাই কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমানকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

ওই ঘটনায় কুষ্টিয়া সদর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদী হয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় ১৪ ডিসেম্বর রাতে ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের (২)/২৯(১)/৩১(২) ধারায় একটি মামলা করেন। মামলায় বাদী উল্লেখ করেন, ‘আসামি সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আমার নেতা আতাউর রহমানকে রাজনৈতিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করা ও মানহানির উদ্দেশ্য মন্তব্য করেছে।’

কুষ্টিয়া আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অতিরিক্ত পিপি নিজাম উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, আসামি উচ্চ আদালত থেকে আট সপ্তাহের জামিনে ছিলেন। কয়েক দিন আগে তিনি কুষ্টিয়া চিফ জুডিশিয়াল আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করলে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান।

নিজাম উদ্দিন আরও বলেন, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আসামির বিরুদ্ধে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছিলেন। বুধবার শুনানি শেষে আদালত এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন