বিজ্ঞাপন

এম শাহ আলমকে ‘মিথ্যা মামলায়’ গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে ‘সাধারণ আইনজীবীদের’ ব্যানারে আজ সোমবার বেলা ১১টায় মানববন্ধন হয়। আইনজীবী সমিতির সামনে শহীদ মিনার চত্বরে আয়োজিত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম ইউনুছ আলী। এতে বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক ওসমান গণি, ত্রাণ ও পুনর্বাসন সম্পাদক আজহারুল ইসলাম, অতিরিক্ত পিপি ফাহিমুল হক, আইনজীবী প্রবীর মুখার্জি প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, কয়েকটি স্বার্থান্বেষী মহলের চক্রান্তে মিথ্যা মামলায় শাহ আলমকে আটক করে সাতক্ষীরায় আইনজীবীদের সম্মান ক্ষুণ্ন করা হয়েছে। অবিলম্বে শাহ আলমের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে এবং তাঁকে দ্রুত মুক্তি দিতে হবে।

default-image

পরে দুপুর ১২টার দিকে এম শাহ আলমের শাস্তির দাবিতে আইনজীবী ভবনের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে ‘সাতক্ষীরা সম্মিলিত আইনজীবী ঐক্যজোট’। এ সময় জজ কোর্টের পিপি আবদুল লতিফ, আইনজীবী এখলেছার আলী, শাহনেওয়াজ পারভীন, নুরুল আমিন উপস্থিত ছিলেন। বক্তারা শাহ আলমকে দুর্নীতিগ্রস্ত উল্লেখ করে তাঁর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, ২০২০ সালের ৬ অক্টোবর জেলা আইনজীবী সমিতির সামনে শ্যামনগর সহকারী জজ আদালতে নিজেরই দেওয়ানি মামলার সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য দাঁড়িয়েছিলেন লিয়াকত হোসেন। এ সময় আসামিরা পূর্বপরিকল্পিতভাবে তাঁকে জাপটে ধরে সমিতির তৎকালীন সভাপতি এম শাহ আলমের তিনতলার চেম্বারে নিয়ে যান। তখন শাহ আলম শিক্ষানবিশ আইনজীবী লিয়াকত হোসেনের গলায় ‘আমি আইনজীবী নই, আমি টাউট’ লেখা ঝুলিয়ে মুঠোফোনে ছবি তুলে তা নিজ ফেসবুক আইডিতে ছেড়ে দেন। এ ছাড়া লিয়াকতকে ভয়ভীতিও দেখানো হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাতক্ষীরা সদর থানার পরিদর্শক বিশ্বজিৎ কুমার বলেন, শিক্ষানবিশ লিয়াকত হোসেনের মামলায় রোববার দুপুরে আইনজীবী শাহ আলমকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিকেলে তাঁকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। আজ সোমবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাঁর পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালত বুধবার শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন