ডিজিটাল সেবায় দ্রুত ভাতা

বিজ্ঞাপন
default-image

ডিজিটাল পদ্ধতির কারণে সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিতে উপকারভোগীরা এখন সরাসরি টাকা পাচ্ছেন। প্রত্যন্ত অঞ্চলের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কাছে মুঠোফোনের মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে বিভিন্ন ভাতা পৌঁছে যাচ্ছে। প্রথাগত ব্যাংকিং পদ্ধতির তুলনায় এই ডিজিটাল সেবা পেয়ে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী অল্প সময়েই উপকৃত হচ্ছে।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারের প্রথম আলো কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত গোলটেবিল বৈঠকে এসব কথা বলেন বিশিষ্টজনেরা। ‘সামাজিক নিরাপত্তা ভাতা প্রদান: ডিজিটাল পদ্ধতির ব্যবহার’ শীর্ষক এই বৈঠকের আয়োজন করে প্রথম আলো। সহযোগিতায় ছিল ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এবং যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা ইউএসএআইডি। বৈঠকে সূচনা বক্তব্য দেন প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম।

বৈঠকে পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব শামসুল আলম বলেন, চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের যুগে সবকিছুই ডিজিটাল হচ্ছে। সামাজিক সুরক্ষার ভাতা কর্মসূচিতে আগে ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা যেত। এতে সময় বেশি লাগত, উপকারভোগীরা নানা ভোগান্তিতে পড়তেন। এখন মুঠোফোনের মাধ্যমে খুব সহজে ও দ্রুত টাকা পৌঁছে দেওয়া যাচ্ছে। তবে মুঠোফোনে টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রে সার্ভিস চার্জ কমানোর বিষয়ে নজর দেওয়া উচিত।

সরকারের যেসব উদ্যোগ সরাসরি জনগণের কাছে পৌঁছায়, তা সমাজে অল্প সময়েই প্রভাব ফেলতে পারে বলে বৈঠকে উল্লেখ করেন সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালক সৈয়দ মো. নূরুল বাসির।

ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের এদেশীয় পরিচালক ফ্রেড উইটিভিন বলেন, ডিজিটাল লেনদেনে সামাজিক সুরক্ষার কর্মসূচিগুলোর কার্যকারিতা বেড়েছে। এতে দুস্থ নারীর ক্ষমতায়ন হচ্ছে, যা প্রভাব ফেলছে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম গড়তে এবং গ্রামীণ অর্থনীতিতে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন