বান্দরবানের রুমা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান উহ্লাচিং মারমার স্ত্রী ডমেচিং মারমা ওরফে বেবী মারমা (৩৫) ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আজ বৃহস্পতিবার ভোরে চট্টগ্রামে মারা গেছেন। তিনি চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। বান্দরবানের কারও ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঘটনা এটিই প্রথম।

রুমা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ১০ সেপ্টেম্বর উপজেলা চেয়ারম্যানের স্ত্রী ডমেসিং মারমাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বামংপ্রু মারমা বলেন, চেয়ারম্যানের স্ত্রীকে যখন হাসপাতালে আনা হয়, তখন তাঁর জ্বর ছিল। এখানে চিকিৎসা দিয়ে তাঁকে বান্দরবান সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু তাঁকে বান্দরবান সদর হাসপাতালে ভর্তি না করে একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়।

বান্দরবান জেলা শহরের বেসরকারি ইমানুয়েল হাসপাতালের পরিচালক পারকুম লুসাই বলেছেন, তাদের হাসপাতালে ভর্তি করার পর পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে জটিল অবস্থা দেখে ডমেচিংকে চট্টগ্রামে পাঠানো হয়েছিল।

রুমা উপজেলা চেয়ারম্যান উহ্লাচিং মারমা বলেছেন, চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসকেরা বলেছেন, তিনি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে লিভার ও কিডনির সমস্যা থাকায় ডেঙ্গুর চিকিৎসা ঠিকমতো করা যাচ্ছিল না। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার আগে তাঁর স্ত্রী বেশ কয়েকবার ছেলে-মেয়েদের ভর্তির ব্যাপারে ঢাকায় গিয়েছিলেন।

বান্দরবানের সিভিল সার্জন অংসুই প্রু মারমা বলেন, বান্দরবানে এই প্রথম ডেঙ্গুতে কেউ মারা গেলেন। জেলায় আজ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৫৯ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। বর্তমানে বান্দরবান সদর হাসপাতালে একজন ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসাধীন আছেন। অন্যরা সবাই চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0