default-image

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখা ছাত্রলীগের নেতা আফজাল খানকে (২৪) নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তি করার অভিযোগে সুনামগঞ্জের ধরমপাশা থানায় মামলা হয়েছে। ছাত্রলীগ নেতা বাদী হয়ে গতকাল শনিবার রাতে ১০ জনকে আসামি করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি করেন।

আফজাল খানের বাড়ি উপজেলার জয়শ্রী ইউনিয়নের মহেশপুর গ্রামে। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের আন্তর্জাতিকবিষয়ক উপসম্পাদক।  

ধরমপাশা থানা–পুলিশ ও ওই শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আফজাল খান গত ২৯ মার্চ দুপুরে হেফাজতে ইসলামের সহিংসতার ছবি দিয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা পোস্টটির স্ক্রিনশট রেখে দেন। ছাত্রলীগ নেতার এই পোস্ট নিয়ে ৭ এপ্রিল হেফাজতে ইসলামের কয়েকজন সমর্থক কটূক্তি ও মানহানিকর কথা লিখে তাঁদের ফেসবুক আইডি থেকে পোস্ট করেন।

বিজ্ঞাপন

যাঁদের নামে মামলা হয়েছে তাঁরা হলেন শান্তিপুর গ্রামের শেখ রেজাউল করিম (২২), হরিপুর গ্রামের তুষার আবদুল্লাহ (২১) ও মনিরুজ্জামান মনির (২৩), বাদে হরিপুর গ্রামের উমর ফারুক (২৫), হাফেজ সাঈদ (২০), রবিউল হাসান (২৩), আবদুস শহীদ খান (২২), হাফেজ নোমান আহমেদ (২৫) ও মনির (২৩) এবং মহেষপুর গ্রামের যুবদল কর্মী আকবর রাজীব (৩৫)।

এর আগে ৬ এপ্রিল বিকেলে উপজেলার জয়শ্রী বাজারে আফজাল খানকে হেনস্তা ও আটক করে রাখার ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় ২৯ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাতনামা ২০-২৫ জনকে আসামি করে পরের দিন ধরমপাশা থানায় একটি মামলা করেন তিনি। ওই মামলায় দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ছাত্রলীগ নেতা আফজাল খান বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় ১০ আসামির মধ্যে ৯ জন হেফাজতে ইসলামের সমর্থক ও ১ জন যুবদল কর্মী।

ধরমপাশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা ওসি (তদন্ত) মো. আতিকুর রহমান আজ রোববার বেলা দুইটার দিকে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ছাত্রলীগ নেতার করা মামলাটির তদন্ত কার্যক্রম অব্যাহত আছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন