তর্কাতর্কির একপর্যায়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাত, যুবক খুন

বিজ্ঞাপন
default-image

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার সরোজগঞ্জ বাজারে আজ বুধবার দোকানের এক কর্মচারী খুন হয়েছেন। তর্কাতর্কির একপর্যায়ে অপর একটি দোকানের কর্মচারী তাঁকে হত্যা করেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ তাঁকে খুঁজছে।

নিহত ব্যক্তির নাম তরিকুল ইসলাম (২৫)। তিনি সদর উপজেলার সুবদিয়া গ্রামের মঈনুদ্দীনের ছেলে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, তরিকুল সরোজগঞ্জ বাজারে গৌতম সাহার দোকানের কর্মচারী ছিলেন। যাদবপুর গ্রামের বদর উদ্দীনের ছেলে রিফাত রহমান (২৪) একই বাজারের বিষ্ণুপদ সাহার দোকানের কর্মচারী। আজ সন্ধ্যা ছয়টার দিকে তাঁদের মধ্যে তর্কাতর্কি শুরু হয়।

একপর্যায়ে রিফাত বস্তা থেকে চাল বের করার টিনের ধারালো অস্ত্র দিয়ে তরিকুলের তলপেটে আঘাত করেন। এতে তরিকুল জখম হন। সেখানে থাকা লোকজন তরিকুলকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানকার জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক মাহবুবুর রহমান তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চিকিৎসক মাহবুবুর রহমান বলেন, হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই তরিকুল মারা যান। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গৌতম সাহার দোকানের আরেক কর্মচারী শফিকুল ইসলাম জানান, সন্ধ্যায় তরিকুল আলমসাধুতে (একধরনের যানবাহন) করে দোকানের মালামাল নিয়ে আসেন। সে সময় রিফাত তাঁকে উদ্দেশ করে বাজে ইঙ্গিত করেন। এ নিয়ে দুজন তর্কে লিপ্ত হন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান বলেন, রিফাত পলাতক। তাঁকে ধরতে অভিযান চলছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন