বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সিলেট স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশে সাতটি স্থলবন্দরে এডিবির অর্থায়নে একটি প্রকল্পের আওতায় মেডিকেল সেন্টার স্থাপনা করা হবে। এর মধ্যে সিলেট তামাবিল স্থলবন্দরে একটি স্থাপনের জন্য জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে।

গত সপ্তাহে তামাবিল স্থলবন্দর পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. সাইদুর রহমান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা, পরিচালক (রোগনিয়ন্ত্রণ ও লাইন ডিরেক্টর) মো. নাজমুল ইসলাম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক হিমাংশু লাল রায়, সিলেটের সিভিল সার্জন প্রেমানন্দ মণ্ডল, গণপূর্ত বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এ কে এম সোহরাওয়ার্দী প্রমুখ।

সূত্র জানায়, প্রথমে মেডিকেল সেন্টার হবে তামাবিল স্থলবন্দরে। বন্দরটিতে স্ক্রিনিংয়ের পাশাপাশি ১০টি শয্যা রাখা হবে। এতে বন্দরটি ব্যবহার করা ব্যক্তিদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার পাশাপাশি জরুরি স্বাস্থ্যসেবা দেওয়া হবে। পরবর্তী সময়ে পর্যায়ক্রমে সিলেটের বিয়ানীবাজার ও জকিগঞ্জ স্থলবন্দরে মেডিকেল সেন্টার স্থাপন করা হবে। করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পর স্থলবন্দরগুলোতে স্বাস্থ্য পরীক্ষার ক্যাম্প স্থাপন করা হয়। পরবর্তী সময়ে এডিবির প্রকল্পের আওতায় মেডিকেল সেন্টার স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এরই অংশ হিসেবে তামাবিল স্থলবন্দরে মেডিকেল সেন্টার নির্মাণ করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক হিমাংশু লাল রায় বলেন, সারা দেশের স্থলবন্দরগুলোতে এডিবির আওতায় মেডিকেল সেন্টার স্থাপন করা হচ্ছে। সিলেটের তামাবিল স্থলবন্দরে শিগগিরই নির্মাণকাজ শুরু করা হবে।

হিমাংশু লাল আরও বলেন, করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির পর মেডিকেল সেন্টার স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এর অংশ হিসেবে তামাবিল স্থলবন্দরে মেডিকেল সেন্টার স্থাপন করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন