বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিহত দুই শিশুর পারিবারিক সূত্র জানায়, আলমপুর ইউনিয়নের চকতাহীরা গ্রামের রওশান আলীর মেয়ে লিমা আক্তারকে চার বছর আগে সরদারপাড়া গ্রামের লিয়াকত হোসেন বিয়ে করেন। তাঁদের তিন বছরের ছেলে রাফিজ সরদার। গত বৃহস্পতিবার রাফিজের নানি আলমিনা খাতুন হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। এ খবর শুনে রাফিজকে সঙ্গে নিয়ে মা আলমিনাকে দেখতে আসেন লিমা আক্তার।

শুক্রবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে শিশু রাফিজ ও তাঁর মামা ইমরান হোসেনের ছেলে তাহসিন আহমেদ বাড়ির উঠানে খেলছিল। এ সময় বাড়ির লোকজন রান্নাসহ নানা কাজে ব্যস্ত ছিলেন। একপর্যায়ে সবার অগোচরে বাড়ির পাশের পুকুরে ডুবে যায় ওই দুই শিশু। দীর্ঘ সময় উঠানে দেখতে না পেয়ে খুঁজতে শুরু করেন বাড়ির লোকজন। অনেক খোঁজাখুঁজির পরেও তাদের পাওয়া যায়নি। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে এলাকাবাসী ওই পুকুরে জাল টেনে রাফিজ ও তাহসিনের লাশ উদ্ধার করেন। পরদিন বিকেলে ওই দুই শিশুর লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

গতকাল চকতাহীরা গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, তাহসিনের মা–বাবা আহাজারি করছেন। সরদারপাড়া গ্রামের রাফিজ সরদারের মা লিমা আক্তার বাড়ির উঠানে বসে বিলাপ করছেন। তিনি বলেন, ‘রাফিজ ছিল আমার একমাত্র সন্তান। বুকের ধনকে হারিয়ে আমি এখন কী নিয়ে বেঁচে থাকব?’

এ বিষয়ে আলমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দেলওয়ার হোসেন বলেন, ঘটনাটি অত্যন্ত বেদনাদায়ক। শিশু দুটির মৃত্যুতে পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমেছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন