default-image

সাতক্ষীরার তালায় দশম শ্রেণির এক ছাত্রীর বাল্যবিবাহের আয়োজন করায় কনের বাবাকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। আজ বুধবার বিকেল ৫টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তারিক উল হাসান অভিযান চালিয়ে এই বিয়ে বন্ধ করেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়, দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার একটি গ্রামে দশম শ্রেণির এক ছাত্রীর বাল্যবিবাহের আয়োজন করা হয়েছে, এমন খবর পেয়ে তালা উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা নাজমুন নাহার তাঁর অফিস সহায়ক শাহিন ও এস এম জামান, তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তরের হিসাব সহকারী মো. মনিরুজ্জামান ও তালা থানার সহকারী উপপরিদর্শককে (এএসআই) নিয়ে বিকেল চারটার দিকে ঘটনাস্থলে যান। সেখানে গিয়ে দেখেন বিয়ের আয়োজন চলছে। ইতিমধ্যে অতিথি আপ্যায়ন শেষ হয়ে গেছে। এ সময় নাজমুন নাহার কনের বাবার কাছে কনের জন্মসনদ দেখতে চান। জন্মসনদ অনুযায়ী দেখা যায়, কনের বয়স ১৭ বছর। কনে অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় তিনি কনে ও বরের অভিভাবকদের বিয়ে বন্ধ করতে বলেন। পরে তিনি বিষয়টি তালার ইউএনওকে জানালে তিনি ঘটনাস্থলে বিকেল পাঁচটার দিকে আসেন।

জন্মসনদ অনুযায়ী দেখা যায়, কনের বয়স ১৭ বছর। পরে বিষয়টি তালার ইউএনওকে জানালে তিনি ঘটনাস্থলে বিকেল পাঁচটার দিকে আসেন।

নাজমুন নাহার জানান, ইউএনও তারিক উল হাসান ঘটনাস্থলে এসে বাল্যবিবাহের আয়োজন করার অপরাধে কনের বাবাকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এই সময়ের মধ্যে বরপক্ষের লোকজন কনের বাড়ি থেকে সটকে পড়েন। পরে কনের বাবা ও মা তাঁদের মেয়েকে ১৮ বছর না হলে বিয়ে দেবেন না মর্মে মুচলেকা দেন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন