বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিআইডব্লিউটিএ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল দুপুরে পন্টুন স্থাপনে জায়গা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য একটি ভেকু যন্ত্র নিয়ে কাউতলীতে যান ভৈরব বন্দরের সহকারী সমন্বয় কর্মকর্তা আবদুল মোতালিব। পাঁচ মাস আগেই সেখানে পন্টুনটি এনে রাখা হয়েছে। এ সময় মাহমুদুল হক, তাঁর লোকজন ও কাউতলী বাজার কমিটির লোকজন বাধা দেন।

জানা গেছে, তিতাস নদের শাখা এন্ডারসন খালের কাউতলী বাজার এলাকায় পন্টুন স্থাপন করা হবে। এ জন্য ১২ সেপ্টেম্বর বিআইডব্লিউটিএর আশুগঞ্জ-ভৈরব বাজার নদীবন্দরের উপপরিচালক শহীদ উল্ল্যাহ কাউতলী বাজার এলাকায় গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা সরানো জন্য ব্যবসায়ীদের চিঠি দেন। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ২৬ ও ২৭ সেপ্টেম্বর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করবেন। কিন্তু ওই দুদিন কাউতলী বাজার এলাকায় কোনো অভিযান চালানো হয়নি।

গত ১৬ জুন মাহমুদুল হক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও অভিযান প্রসঙ্গে বিআইডব্লিউটিএকে একটি চিঠি দেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেন, কাউতলী বাজারে যেখানে পন্টুন স্থাপন করা হচ্ছে, তা সরকারি জায়গা নয়। তিনি বলেন, ‘ আগে সরকারি রাস্তা বের করে পন্টুন স্থাপন করা হোক।’

বিআইডব্লিউটিএর আশুগঞ্জ-ভৈরব বাজার নদীবন্দরের উপপরিচালক শহীদ উল্ল্যাহ বলেন, গতকাল একটি ভেকু মেশিন কাউতলী পাঠানো হয়েছিল। সরকারি জায়গায় পন্টুন স্থাপন করে যাত্রীদের চলাচলের রাস্তা করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন