বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

খেজুরবাড়িয়া গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী ফজর আলী বলেন, আট–নয় মাস আগে সীমান্ত নদীর সংযোগ খাল সাপমারা পুনঃখনন করা হয়। খালের প্রস্থ করা হয় ৮০ ফুট। এরপর থেকে সেতু তিনটির সংযোগ সড়ক থেকে মাটি সরে যেতে থাকে। মাটি সরে গিয়ে বর্তমানে এমন ভয়াবহ অবস্থা দাঁড়িয়েছে যে ওই সব সেতু দিয়ে চলাচল করা যাচ্ছে না।

একই এলাকার চিংড়ি ব্যবসায়ী আফসার গাজী জানান, সেতু তিনটির কারণে এই এলাকায় জীবনযাত্রা থমকে গেছে।

পারুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ এসব সেতুর বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার জানানো হয়েছে। তবে দীর্ঘদিনেও সমাধান হয়নি।

দেবহাটা উপজেলা প্রকৌশলী রথীন্দ্রনাথ হালদার বলেন, সেতু ছাড়া খালের প্রস্থ বেশি খনন করায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। একটি সেতুর সংযোগ সড়কের জন্য বরাদ্দ পাওয়া গেছে। বাকি দুটির জন্য কোনো বরাদ্দ নেই।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন