দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে সালাম বললেন, ‘তিন প্রজন্মের ব্যবসাটি হয়তো আমাকে ছাড়তে হবে। পদ্মা সেতু চালু হচ্ছে, মানুষের দীর্ঘদিনের ভোগান্তির অবসান হবে, এটি অন্য রকমের আনন্দ। কিন্তু ৩৬ বছরের বেঁচে থাকার অবলম্বন বন্ধ হতে পারে, এটি অনেক বেদনার।’

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লউটিএ) সূত্র জানায়, সেতু চালুর পর শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথ বন্ধ হয়ে যাবে। শিমুলিয়া-জাজিরা নৌপথে সীমিত পরিসরে ফেরি চলাচল করবে। তবে যাত্রী পারাপার বন্ধ থাকবে। সে ক্ষেত্রে ঘাটে লোকজনের আনাগোনা কমে যাবে। এতে হোটেলসহ অন্যান্য দোকানের প্রয়োজন কমে যাবে।

default-image

শিবচরের সলু ব্যাপারী কান্দি গ্রামের ফেরদৌস হাওলাদার কাওড়াকান্দি ট্রলার ঘাটে রেস্তোরাঁর ব্যবসা চালু করেন ১৯৮৮ সালে। ২০১৪ সালে ফেরদৌস মারা গেলে ছেলে সাত্তার হাওলাদার ব্যবসার হাল ধরেন। এখন মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌপথের বাংলাবাজার ঘাটে সাত্তার (৫৫) ও তাঁর ছেলে আমীন হাওলাদার (২২) রেস্তোরাঁর ব্যবসা চালাচ্ছেন। সেতু চালুর পর ঘাটে মানুষের চলাচল থাকবে না। বন্ধ করে দিতে হবে তাঁদের তিন প্রজন্মের রেস্তোরাঁর ব্যবসা। সরেজমিনে দেখা যায়, এরই মধ্যে কেউ কেউ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের স্থাপনা সরিয়ে নিতে শুরু করেছেন।

আমীন হাওলাদার প্রথম আলোকে বললেন, ‘দাদার হোটেলটি আব্বা চালাচ্ছেন। পাঁচ বছর ধরে আমি তাঁকে সহায়তা করছি। পদ্মা সেতু আমাদের গৌরবের স্থাপনা। এটি ঘিরে এই অঞ্চলের অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে। তখন হয়তো আমি একটি কাজ জুটিয়ে নিতে পারব। এ বয়সে এসে আব্বা আর কী করবেন?’

এই রেস্তোরাঁই তাঁদের পরিবারের আয়ের একমাত্র উৎস জানিয়ে সাত্তার বললেন, ‘নানা চড়াই-উতরাইয়ের মধ্যেও ব্যবসাটি টিকিয়ে রেখেছি। ৩৪ বছর পর পরিবারের ব্যবসাটি বন্ধ হয়ে যাবে, এমনটা ভাবলেই দুঃখ হয়। তারপরও পদ্মা সেতু হচ্ছে, এলাকা উন্নত হবে, এটি ভেবে আনন্দিত হচ্ছি।’

২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধন করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১৯টি জেলাকে সারা দেশের সঙ্গে সড়কপথে যুক্ত করবে পদ্মা সেতু। এই সেতুর মাধ্যমে মোংলা বন্দর ও বেনাপোল স্থলবন্দরের সঙ্গে রাজধানী ও বন্দরনগরী চট্টগ্রামের সরাসরি যোগাযোগ স্থাপিত হবে।

চলাচল সহজ করার পাশাপাশি অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে পদ্মা সেতু। এক সমীক্ষা অনুযায়ী, পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে ১ দশমিক ২৩ শতাংশ হারে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) বৃদ্ধি পাবে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জিডিপি বাড়বে ২ দশমিক ৩ শতাংশ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন