বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিহত তিন শিশু হলো মোল্লারগাঁও গ্রামের সমীরণ দাসের ছেলে স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র নিলয় দাস (৮), পুতুল দাসের ছেলে ও নিহত নিলয় দাসের চাচা খোকন দাস (১৪) ও একই গ্রামের লিপু চন্দের ছেলে কনক চন্দ (১১)। তারা এক প্রতিবেশীর বিয়ের অনুষ্ঠানের বরযাত্রী ছিল।

সোমবার বিকেলে মোল্লারগাঁও গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, তিন শিশুর স্বজনেরা আহাজারি করছেন। নিহত নিলয় দাসের মা সুমতি দাস বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন। একটু চোখ মেললেই বলছেন, ‘তোমরা আমার বুকের ধনকে এনে দাও।’

একইভাবে একমাত্র ছেলে কনক চন্দকে হারিয়ে পাগলের মতো প্রলাপ করতে দেখা যায় লিপু চন্দকে।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে সমীরণ দাস বলেন, ‘অনেক শখ করে বিয়েতে গিয়েছিল ছেলে। এভাবে দুর্ঘটনায় সব শেষ হবে, ভাবতে পারিনি।’

পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, মোল্লারগাঁও গ্রামের সাগর দের বিয়ে উপলক্ষে পার্শ্ববর্তী শান্তিগঞ্জ উপজেলার পাগলা এলাকার একটি কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ের অনুষ্ঠানে বরযাত্রী হিসেবে গিয়েছিল মোল্লারগাঁও গ্রামের শতাধিক বাসিন্দা। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষে একটি মাইক্রোবাসে করে ফিরছিল সাত বরযাত্রী। একপর্যায়ে সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকের পেছনে ধাক্কা খেয়ে মাইক্রোবাসটি দুমড়েমুচড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারায় নিলয় দাস, খোকন দাস ও কনক চন্দ। আহত অন্যদের সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

কলকলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আবদুল হাশিম জানান, বিয়েতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন শিশুর মৃত্যুতে পরিবারগুলোতে মাতম চলছে।

জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, তিন শিশুর লাশ ময়নাতদন্তের পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালাতে গিয়ে মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন