default-image

তিস্তা নদীর সুরক্ষা নিশ্চিত করা, ভাঙন ও বন্যা রোধের দাবিতে নদীর দুই তীরে ২৩০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়েছে। আগামী রোববার বেলা ১১টায় এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হবে। শুক্রবার সকালে রংপুর নগরের একটি কমিউনিটি সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করে ‘তিস্তা বাঁচাও, নদী বাঁচাও সংগ্রাম পরিষদ’ নামে একটি সংগঠন এই কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, রোববার তিস্তার দুই তীরে ২৩০ কিলোমিটারজুড়ে মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়েছে। তিস্তা নদীর প্রবেশ মুখ বাংলাদেশের নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার পশ্চিম ছাতনাই জিরো পয়েন্ট থেকে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের হরিপুর ঘাট (এখানে তিস্তা-ব্রহ্মপুত্র মিলেছে) পর্যন্ত মানববন্ধন হবে। তিস্তা নদী বাংলাদেশ অংশে ১১৫ কিলোমিটার প্রবাহিত। এই অংশে প্রতিবছর বন্যা আর ভাঙনে লাখ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বন্যা ও ভাঙনের হাত থেকে মুক্তি চায় নদীর তীরবর্তী মানুষ। তিস্তা নদীর সুরক্ষা, দুই তীরের বন্যা ও ভাঙন রোধ এবং ক্ষতিগ্রস্ত লোকজনেরর ক্ষতিপূরণের দাবিতে এই মানববন্ধন হবে। সেই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিস্তা নদী নিয়ে যে মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন, সেটা দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানানো হবে মানববন্ধনে।

বিজ্ঞাপন

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সভাপতি নজরুল ইসলাম হক্কানী লিখিত বক্তব্য পড়েন। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শফিয়ার রহমানের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তৃতা দেন স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক তুহিন ওয়াদুদ। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য শফিকুল ইসলাম, আমিন উদ্দিন, মোজফফর হোসেন, মোহাম্মদ আলী, মাহমুদ আলম, মাহাবুব আলম, আমিনুর রহমান, সাদেকুল ইসলাম, আবদুন নুর দুলাল, বখতিয়ার হোসেন, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের শিক্ষক নুরুজ্জামান খান প্রমুখ।

মন্তব্য পড়ুন 0