বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উপজেলার সাত ইউপির মধ্যে তিরনই হাটে ৬ হাজার ২২৭ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আলমগীর হোসাইন। তিনি বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। আলমগীরের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী দানিয়েল হোসেন পেয়েছেন ৫ হাজার ২১২ ভোট।

এদিকে ভজনপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বিএনপি নেতা মসলিম উদ্দীন ৪ হাজার ৯৯৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আরেক বিএনপি নেতা মকসেদ আলী পেয়েছেন ২ হাজার ৭০০ ভোট।

বুড়াবুড়ি ইউপিতে তারেক হোসেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন। তিনি ৩ হাজার ৩১৫ ভোট পেয়ে চেয়াম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. কামরুজ্জামান ২ হাজার ৮৬৬ ভোট পেয়েছেন।

বাংলাবান্ধা ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী কুদরত-ই-খুদা ৬ হাজার ১৭৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মাহবুবুল আলম পেয়েছেন ২ হাজার ৮৩৮ ভোট।

দেবনগরে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছলেমান আলী ৪ হাজার ৩৯০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বিএনপি নেতা মহসিন-উল-হক ৩ হাজার ৫৩৮ ভোট পেয়েছেন।

এ ছাড়া তেঁতুলিয়া সদর ও শালবাহান ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। তেঁতুলিয়া সদরে নৌকার প্রার্থী মাসুদ করিম সিদ্দিকী ৬ হাজার ১২৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বিএনপি নেতা শাহাদাৎ হোসেন পেয়েছেন ৩ হাজার ৭৮৫ ভোট।

শালবাহানে ৭ হাজার ৩৭১ ভোট পেয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। ৩ হাজার ৩১ ভোট নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেওয়া বিএনপি নেতা মতিয়ার রহমান নৌকা প্রার্থীর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন