default-image

হত্যা মামলায় জেলহাজতে থাকায় খুলনার তেরখাদা উপজেলার ছাগলাদাহ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান এস এম দ্বীন ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এ বিষয়ে সোমবার  স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, তেরখাদা থানায় হওয়া এক জোড়া খুনের মামলায় ২০১৯ সালের আগস্ট মাস থেকে ওই চেয়ারম্যান জেলহাজতে রয়েছেন। তাঁর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করেছিলেন খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন। ওই সুপারিশের ভিত্তিতে স্থানীয় সরকার বিভাগ তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করে।

পুলিশ সূত্র জানায়, পূর্বশত্রুতার জের ধরে ২০১৯ সালের ৭ আগস্ট ছাগলাদাহ ইউনিয়নের পহড়ডাঙ্গা গ্রামে হিরু শেখ ও তাঁর ছেলে নাঈম শেখকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় ১৬ জনকে আসামি করে তেরখাদা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন হিরু শেখের স্ত্রী মাহফুজা বেগম। তদন্ত শেষে ইউপি চেয়ারম্যান দ্বীন ইসলামসহ ১৯ জনে বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ।  

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব মো. আবু জাফর রিপন স্বাক্ষরিত জারি করা ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, দ্বীন ইসলাম গ্রেপ্তার হওয়ার পর তাঁর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করেছিলেন জেলা প্রশাসক। যেহেতু ওই চেয়ারম্যান দীর্ঘদিন জেলহাজতে রয়েছেন, তাই তাঁকে দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে ক্ষমতা প্রয়োগ প্রশাসনিক দৃষ্টিকোণে সমীচীন নয় বলে সরকার মনে করে। তাঁর ওই অপরাধ জনস্বার্থপরিপন্থী বিবেচনায় স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন অনুযায়ী দ্বীন ইসলামকে তাঁর পদ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

তেরখাদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, আগে থেকেই ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কার্যক্রম চলছিল। সোমবার প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। তবে ওই সংক্রান্ত কোনো চিঠি এখনো তাঁর দপ্তরে পৌঁছায়নি।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন