বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এই শ্রমিকেরা আসেন মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে। তাঁরা শহর ও শহরতলির বিভিন্ন স্থানে বাসা ভাড়া করে থাকেন। কেউ কেউ থাকেন সপরিবারে, কেউ কেউ একা। আবার কেউ কেউ আসেন বাড়ি থেকেই। সকাল সাতটা থেকে সাড়ে সাতটা পর্যন্ত শ্রমিকদের আনাগোনা চলে। কাজ পেলে ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা রুজির ব্যবস্থা হয়, না হলে খালি হাতে ফিরতে হয় ঘরে।

গতকাল সকালে চৌমোহনা চত্বরে গিয়ে দেখা যায়, চত্বরের চারদিকে পাঁচ থেকে দশজনের জটলা করে অনেক শ্রমিক বসে আছেন। পাশে সারি করে রাখা টুকরি-কোদাল। একপর্যায়ে অনেক শ্রমিকই কাছে এসে ভিড় করেন। সবার মধ্যে কাজ পাওয়ার প্রত্যাশা। নানা বিষয়ে কথা বলছিলেন তাঁরা। ঘরে ছেলেমেয়ে, স্ত্রী, বাবা-মা ও ভাই-বোন আছেন। তাঁদের নতুন একটা জামাকাপড় কিনে দেওয়া তো দূরের কথা, ঈদের দিন ভালো কোনো আহারের ব্যবস্থা করাও কঠিন হয়ে গেছে। এ সময় একে একে সবাই অনুরোধ করেন, তাঁর নামটা যেন লিখে নেওয়া হয়।

শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কয়েক দিন ধরে কাজ কমে গেছে। তাই অনেককেই কাজ না পেয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের জহির মিয়া বলেন, ‘এখানও যাঁরা আছেন, তাঁদের সবারই একই সমস্যা, টাকা নাই। যা রুজি করছি, তা দিয়া তেল কিনলে মরিচ নিতাম পারি না, ঈদ লইয়া (নিয়ে) ভাবতাম কিতা (কী)!’

default-image

দুই মেয়ে জন্য এখনো ঈদের পোশাক কিনতে পারেননি রাজনগরের শাহীন মিয়া। তিনি বলেন, ‘মাইয়া দুইডারে জামা কিনা দিবার চিন্তা আছে। কিন্তু নিজর চিন্তা নিজর ভেতরে লইয়া বই রইছি (বসে রয়েছি)।’

একে একে আলাপ হয় ফজলু মিয়া, সবর মিয়া, আবদুল গফুর, জাকির মিয়া, লাল মিয়া, রকিব মিয়া, জহিরুল ইসলাম, হৃদয় মিয়া, আবুল মিয়া, আবু মিয়া, মিজান মিয়া, শাহীন মিয়া, আসাদ হোসেন, জসিম মিয়া, সাইদুল মিয়া, মো. আলী, জানু মিয়া, আবদুল্লাহসহ প্রায় ৩০ জন শ্রমিকের সঙ্গে।

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের সুমন মিয়া বলেন, ‘ভোর পাঁচ-ছয়টায় আই (আসি)। আটটা-নয়টার দিকে ফেরত যাই। আইজ (আজ) তিন-চাইর দিন (চার দিন) ধরি আইয়া (এসে) ঘোরাঘুরি করি ফিরত যাইরাম (যাচ্ছি)। কাজ নাই। পয়সা নাই। ছেলেমেয়েরে কই থাকি জামা কিনিয়া দিতাম (কোথা থেকে কিনি দিব)।’

তাঁদের মতো গরিবের ঈদের দিনও যা, অন্য দিনও তা বলে জানান ভাসমান শ্রমিক ওয়াহিদ মিয়া। তিনি বলেন, ‘অউযে দেখরা (এই যে দেখতেছেন), এরা কেউরিরই (এদের কারোই) টাকাপয়সা নাই, যা রুজি করে তা দিয়ে সংসারর খরচই চলে না।’

মোক্তার মিয়া বলেন, ‘জামা–পোশাক তো দূরর কতা, একটু ভালা খানিরই ব্যবস্থা করতাম পাররাম না। কোন জাগাত গেলে কিচ্ছু পাইমু, তাও জানি না।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন