এর আগে তোফায়েল আহমেদকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সদস্যপদ ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদ থেকে দ্রুত অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধারা। মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনের সড়কে অনুষ্ঠিত ওই মানববন্ধনে শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তানেরা অংশ নেন। মানববন্ধন শেষে সেখানে সমাবেশ হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়েন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার এম এ কবির। এ সময় বলা হয়, ডোমার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে সম্প্রতি অব্যাহতি পাওয়া তোফায়েল আহমেদ রাজাকারের সন্তান। কিন্তু সম্প্রতি একটি মহল তোফায়েল আহমেদকে ওই পদে পুনর্বহালের চেষ্টা করছে। তোফায়েলকে পুনর্বহাল করা হলে তাঁরা আমরণ অনশন করবেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. জসিয়ার রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল জব্বার, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের আহ্বায়ক আল আমিন রহমান, সংগঠনের পৌর আহ্বায়ক আজিজুর রহমান, ডোমার প্রেসক্লাবের সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সদস্য মো. আসাদুজ্জামান প্রমুখ।

দলীয় নেতা-কর্মীরা বলেন, তোফায়েল আহমেদের বিরুদ্ধে স্বাধীনতাবিরোধী পরিবারের সদস্য হওয়ার অভিযোগ তোলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তানেরা। এরপর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি বিভিন্ন জাতীয় দিবসের পতাকা উত্তোলনের অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ায় বাদ সাধেন বীর মুক্তিযোদ্ধা। গত ২৬ মার্চ স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত সরকারি কর্মসূচিতে পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তানদের সঙ্গে তিনি অসদাচরণ করেন। এর জেরে গত ৩১ মার্চ জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় তোফায়েল আহমেদকে দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

সম্প্রতি তোফায়েল আহমেদ তাঁকে পুনর্বহালের আবেদন জানিয়েছেন। আবেদন পাওয়ার পর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মন্‌জুরুল ইসলাম চৌধুরী তাতে সুপারিশ করে দিয়েছেন। আবেদনটি তোফায়েল আহমেদ কেন্দ্রে পাঠিয়েছেন।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ মুঠোফোনে বলেন, তাঁরা আবেদনটি পেয়ে তাতে সুপারিশ করেছেন। এ বিষয়ে কেন্দ্র থেকে সিদ্ধান্ত আসবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন