default-image

পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক বলেছেন, ‘দক্ষিণাঞ্চলের নদ-নদীতে অস্বাভাবিক লবণাক্ততা বাড়ার পেছনে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব রয়েছে। এটি শুধু আমাদের দেশের সমস্যা নয়, এটি একটি বৈশ্বিক সমস্যা। প্রকৃতির এই বৈরিতার সঙ্গে যুদ্ধ করেই আমাদের বাঁচতে হবে। তবে এ সমস্যা উত্তরণ ও খাপ খাওয়াতে বিশ্বের সব দেশের মতো আমাদের দেশের বিশেষজ্ঞরা কাজ করছেন।’

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে বরিশাল সদর উপজেলা পরিষদ চত্বরে ১০০ দুস্থ পরিবারের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দক্ষিণাঞ্চলে ডায়রিয়া পরিস্থিতি মোকাবিলায় স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে এক হাজার আইভি স্যালাইন বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেন, বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত, নেপাল ও ভুটানে এবার বৃষ্টিপাত কম হচ্ছে। এ জন্য উজানে পানির প্রবাহ কম থাকায় ভাটির দিকে মিষ্টি পানির প্রবাহ আগের তুলনায় অনেক কম। অপরদিকে জোয়ারের সময় সমুদ্রের লবণাক্ত পানি ভাটিতে বিস্তৃত হচ্ছে। এ কারণে এবার নদ-নদীর পানিতে লবণাক্ততার পরিমাণ বেড়েছে।

বিজ্ঞাপন

বৃষ্টি যদি আরও দেরিতে হয় তাহলে লবণাক্ততা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করেন প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক। তিনি বলেন, ‘বৃষ্টি হলে নদ-নদীতে লবণাক্ততা থাকত না। বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করেই আমাদের বাঁচতে হবে। এ জন্য নতুন নতুন কৌশল উদ্ভাবন করতে হবে। আমাদের বুদ্ধিমত্তাকে কাজে লাগিয়ে খাপ খাওয়ানোর কৌশলগুলো বের করতে হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে যুদ্ধ করার সাহস আমাদের আছে। আমাদের সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে বৈশ্বিক এই দুর্যোগকে আমরা জয় করতে সক্ষম হব।’

এর আগে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক ব্যক্তিগত উদ্যোগে বরিশালে ডায়রিয়া রোগীদের চিকিৎসার জন্য এক হাজার আইভি স্যালাইন জেলা সিভিল সার্জন মনোয়ার হোসেনের হাতে তুলে দেন। এ ছাড়া করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত কর্মহীন ১০০ মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মুনিবুর রহমান, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মাঈনুল হাসান, সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমানসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন