আগুনের সূত্রপাত বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিল্লুর রহমান বলেন, কোথা থেকে আগুন লেগেছে, তা এখন পর্যন্ত নিশ্চিত নয়। তবে তদন্তের পর সেটি জানানো হবে। এত বেশি প্রাণহানির বিষয়ে তিনি বলেন, আগুনের ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে যদি কারখানা কর্তৃপক্ষ বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে আমলে নিত এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিত, তাহলে হয়তো মৃত্যুর সংখ্যা কম হতে পারত।

এত বিশাল আয়তনের ওই ভবনে মাত্র দুটি সিঁড়ি ছিলে বলে উল্লেখ করেছেন ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক। তিনি বলেন, জাতীয় ভবন নীতিমালা অনুযায়ী, এই আয়তনের ভবনে কমপক্ষে চার থেকে পাঁচটি সিঁড়ি থাকা জরুরি ছিল।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের কর্ণগোপ এলাকায় হাসেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেডের কারখানায় ভয়াবহ আগুন লাগে। এ ঘটনায় দগ্ধ ৪৯ জনের লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে। এর আগে ভবন থেকে লাফিয়ে পড়ে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত ৫২ জনের প্রাণহানি হয়েছে।