বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে মহারাজার জন্ম। সাড়ে ৪ বছরে এটির ওজন হয়েছে ৩৪ মণের বেশি। সাদাকালো রঙের মহারাজার উচ্চতা ৬ ফুট। আর লম্বায় ১০ ফুট। ফ্রিজিয়ান ক্রস জাতের গরুটির দাম ২২ লাখ টাকা হেঁকেছেন আবু হেনা।
ঘুঘরাতলী এলাকার খামারটির নাম আপেল ডেইরি ফার্ম। মালিক আবু হেনার ডাকনামের সঙ্গে মিলিয়ে এই নাম।

শুক্রবার সকালে সরেজমিনে দেখা যায়, শাহি মেজাজে বসে আছে মহারাজা। খামারের মালিক মহারাজা বলে ডাক দিতেই উঠে দাঁড়ায়। খামারের কর্মচারী ভুসি আর খড় মিশিয়ে খাবার এগিয়ে দিলেন। মাথা নাড়িয়ে আশপাশে একবার তাকাল মহারাজা। তারপর খেতে শুরু করল। মাঝেমধ্যে ডেকে উঠছে গরুটি। সেই ডাকের মধ্যেও যেন নামের সার্থকতার দেখা মেলে।

খামারের মালিক আবু হেনা জানান, প্রথমে ফ্রিজিয়ান জাতের একটি গাভি কিনেছিলেন তাঁর বাবা। ওই গাভির একটি বাছুর হয়। সেই বাছুর বড় হওয়ার পর পাঁচটি বাছুরের জন্ম দেয়। মহারাজা সেগুলোর মধ্যে চতুর্থ। তিনি বলেন, অনেক আদর–যত্নে মহারাজাকে বড় করেছেন। প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তারা নিয়মিত গরুটির খোঁজখবর নিয়েছেন। মহারাজার বয়সও হয়ে যাচ্ছে। বিক্রি করতে হবে। খারাপ লাগছে। কিন্তু কী আর করা!

স্থানীয়ভাবে গত এক সপ্তাহে অন্তত ছয়-সাতজন পাইকার মহারাজাকে দেখে গেছেন। একজন পাইকার সর্বোচ্চ দাম বলেছেন ১১ লাখ টাকা। তবে মালিক আবু হেনার কথা, সাড়ে চার বছর ধরে গরুটি লালনপালন করছেন। খাবার ও আনুষঙ্গিক খরচ মিলিয়ে প্রতিদিন গড়ে ১ হাজার ৪০০ টাকা ব্যয় হয়েছে। খড়, ভুসি, খইল, ভাত ও ঘাস ছাড়া অন্য কোনো খাবার দেননি। এলাকায় আশানুরূপ দামে মিলছে না। তাই ঢাকায় নিচ্ছেন মহারাজাকে। সেখানে ন্যায্য দাম পাবেন বলে আশা করছেন আবু হেনা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন