বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন


সুজন সরকার বলেন, ‘ঢাকা থেকে টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট গতকাল দিনাজপুরে আসে। ইউনিটটি রাতে বিভিন্ন মসজিদে অভিযান চালায়। স্থানীয়ভাবে আমাদের সহযোগিতা চেয়েছিল, আমরা আমাদের ফোর্স দিয়ে সহযোগিতা করেছি।’

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাত ১২টায় প্রথমে দিনাজপুর শহরের মহারাজা মোড় এলাকায় বায়তুল ফালাহ মসজিদে অভিযান চালায় ওই ইউনিট। এ সময় বৈঠকরত অবস্থায় জঙ্গি সন্দেহে ১২ জনকে আটক করে তারা। বিরল উপজেলার বিরলবাজার জামে মসজিদ থেকে ১৭ জন, দিনাজপুর সদর উপজেলার শেখপুরা এলাকার ২টি মসজিদ থেকে ১৬ জনকে আটক করা হয়। তাবলিগ জামায়াতের ৪০-৪৫ জনের একটি দল বৃহস্পতিবার ঢাকা থেকে দিনাজপুরের উদ্দেশে আসে। তারা বিভিন্ন মসজিদে বসে নাশকতার পরিকল্পনা করছিল। অ্যান্টি টেররিজমের কাছে আগে থেকেই এমন তথ্য ছিল। সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

মহারাজা মোড় এলাকার বায়তুল ফালাহ জামে মসজিদের খাদেম আবদুর রাজ্জাক বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় এ মসজিদে তাবলিগ পরিচয় দিয়ে ২২ ব্যক্তি আসেন। তাঁরা মসজিদে রাত্রিযাপনের কথা জানান। পরে দুপুরের আগেই ১০ জন অন্য স্থানে চলে যান। তাঁরা বিভিন্ন বয়সের ছিলেন। রাতে এশার নামাজ পড়ে তিনি বাড়িতে চলে আসেন। পরে শুনতে পারেন, তাঁদের পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে দিনাজপুর পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেছেন, জঙ্গি সন্দেহে কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। যাচাই–বাছাই শেষে বিস্তারিত জানানো হবে। তবে সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতেই এ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন