বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জঙ্গি সন্দেহে গ্রেপ্তার যাঁদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে তাঁরা হলেন ঝিনাইদহ জেলার হরিণাকুণ্ডু থানার রিদওয়ানুল হক (২১), ঢাকা মিরপুর এলাকার শাফাত আহমেদ বিন কামাল (২৭), চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের ওয়াহেদপুর গ্রামের মহসিন ভূঁইয়া (২৪), কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর থানার চর হাজীপুর গ্রামের আবদুর রহমান (২৪), ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকার নাফিস আবির (৩০), রংপুর মুন্সিপাড়া এলাকার আবু সাহেদ হাসান (২৮), ঢাকার শ্যামপুর থানার জুরাইন এলাকার জুনায়েদ খান (২৫), দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলার হুমায়ুন কবির (২৬), নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার সাব্বির আহমেদ (৩০), রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার মধুপুর গ্রামের ওয়াহেদুজ্জামান (২৩), কাউনিয়া উপজেলার নিজপাড়া এলাকার মুনিরুল ইসলাম (২২)।

গত বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট (সিটিটিসি) দিনাজপুর সদর উপজেলাসহ তিনটি উপজেলায় বিভিন্ন মসজিদে অভিযান চালিয়ে জঙ্গি সন্দেহে ৪৫ জনকে আটক করে। যাচাই-বাছাই শেষে ১৯ জনকে আটক রাখা হয়। পরে বিশেষ ক্ষমতা আইনে পুলিশের করা পৃথক তিনটি মামলায় ১১ জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আজ আদালতের মাধ্যমে তাঁদের জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

দিনাজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোমিনুল করিম প্রথম আলোকে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাঁদের আটক করা হয়েছে। জেলার বিভিন্ন স্পর্শকাতর জায়গায় নাশকতা করার উদ্দেশ্যে তাঁরা মিলিত হয়েছিলেন। আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদ ও যাচাই-বাছাই শেষে নাশকতামূলক কর্মপরিকল্পনার সঙ্গে ১১ জনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়। পরে বিশেষ ক্ষমতা আইনে করা মামলায় ১১ জনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অন্যদের মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন