অগ্নিকাণ্ড চলাকালে ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালের রোগীদের সরিয়ে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। ২ সেপ্টেম্বর, দিনাজপুর
অগ্নিকাণ্ড চলাকালে ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালের রোগীদের সরিয়ে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। ২ সেপ্টেম্বর, দিনাজপুর সংগৃহীত

দিনাজপুর ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালের স্টোর রুমে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার সন্ধ্যা পৌনে ছয়টার দিকে হাসপাতালের নিচতলায় উত্তর-পূর্ব কোণে পরিত্যক্ত ভান্ডারকক্ষে আগুনের সূত্রপাত হয়। পরে প্রায় দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

এদিকে অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন জাতীয় সংসদের হুইপ সাংসদ ইকবালুর রহিম, জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম ও পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম। তাঁদের তদারকিতে হাসপাতালে থাকা বেশ কিছু রোগীকে দ্রুত দিনাজপুর এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

প্রত্যক্ষদর্শী হাসপাতালের কর্মী এনামুল হক বলেন, পশ্চিম প্রান্তে প্রধান ফটক দিয়ে প্রবেশ করে জরুরি ওয়ার্ডের দিকে যাচ্ছিলেন তিনি। এমন সময় এক নারী রোগী পূর্ব প্রান্তের ওয়াশ রুম থেকে আগুন আগুন বলে চিৎকার করে তাঁর দিকে আসতে থাকেন। পরে তিনিও দৌড়ে গিয়ে জরুরি বিভাগের দিকে গেটের কাছে বিষয়টি পুলিশকে জানান। পুলিশ দ্রুত তা ফায়ার সার্ভিসকে জানায়।

বিজ্ঞাপন

দিনাজপুর ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক মো. আনিসুর রহমান বলেন, খবর পাওয়ামাত্রই ঘটনাস্থলে পাঁচটি ইউনিট গিয়ে আগুন নেভাতে কাজ শুরু করে। পরে সন্ধ্যা সাতটার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লাগতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আগুনে ভান্ডারকক্ষের মালামাল পুড়ে গেছে। তবে প্রাথমিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করা যায়নি।

বিজ্ঞাপন

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক মো. আহাদ আলী বলেন, হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ৮০ জন রোগী ছিলেন। কয়েক দিন থেকে হাসপাতালের দ্বিতীয় তলায় কোভিড ওয়ার্ডের সংস্কারকাজ চলছে। সেখানে নির্মাণশ্রমিকেরা কাজ করছেন। তাঁদেরই কেউ হয়তো ধূমপান করে সিগারেটের অবশিষ্ট অংশ বাইরে ফেলেছেন। সেখান থেকেই আগুনের সূত্রপাত হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0