বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এই প্রতিকূলতার মধ্যে টিকে থাকা অনেক মেছো বাঘ মানুষের তৈরি ফাঁদে ধরা পড়ছে। খাবারের সন্ধানে আসা মাছের খামার, হাঁস-মোরগের খামার ও বাড়িতে ফাঁদ দিয়ে মেছো বাঘ আটক করা হচ্ছে। কখনো কখনো ধানখেতে ফসল কাটার সময়ও ধরা পড়ছে মেছো বাঘের শাবক। অনেক সময় মানুষ আতঙ্কিত হয়ে মেছো বাঘকে মেরে ফেলছে। তবে বেশ কয়েক বছর ধরে সরকারি-বেসরকারি সংস্থার সচেতনতামূলক প্রচারণায় মানুষের মধ্যে বন্য প্রাণী সম্পর্কে সচেতনতা বেড়েছে। এখন আর মেছো বাঘকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হচ্ছে না। ধরা পড়ার পর বন বিভাগকে খবর দেওয়া হয় এবং বন বিভাগ গিয়ে সেটিকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে।

এ ক্ষেত্রে প্রচলিত নিয়মে বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলে ধরা পড়া মেছো বাঘকে লাউয়াছড়া, সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানসহ বিভিন্ন সংরক্ষিত বনে অবমুক্ত করা হয়ে আসছিল। এতে অবমুক্ত হওয়া মেছো বাঘ প্রায়ই খাদ্য ও পরিবেশসংকটে পড়ে। বন থেকে বেরিয়ে আবারও কারও না কারও হাতে ধরা পড়ে। তবে দুই বছর ধরে এই পরিস্থিতি পাল্টেছে। এখন আর জাতীয় উদ্যান বা সংরক্ষিত বনে মেছো বাঘকে অবমুক্ত করা হচ্ছে না। যে স্থানে ধরা পড়ছে, সেই এলাকার মানুষজনকে মেছো বাঘের উপকারী দিকগুলো সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হচ্ছে। এরপর ধরা পড়ার স্থানেই অবমুক্ত করা হচ্ছে। এতে প্রাণীটি নিজের পরিবেশ ফিরে পাচ্ছে।

বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২২ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত সিলেট বিভাগের বিভিন্ন স্থান থেকে ৫৯টি মেছো বিড়াল উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে সাতটি মারা গেছে। জীবিত ৫২টিকে যেসব স্থান থেকে উদ্ধার করা হয়েছিল, সেখানেই অবমুক্ত করা হয়। এর মধ্যে ২৬টি ছিল মেছো বাঘের শাবক।

বন্য প্রাণী গবেষকদের মতে, সারা বিশ্বে মেছো বাঘ সংকটাপন্ন প্রাণী। আন্তর্জাতিক প্রকৃতি সংরক্ষণ সংস্থাগুলোর সংগঠন আইইউসিএন মেছো বাঘকে সংকটাপন্ন প্রাণী হিসেবে লাল তালিকাভুক্ত করেছে। মেছো বাঘ মানুষের কোনো ক্ষতি করে না। প্রাণীটি বাংলাদেশেও বিপন্ন। প্রাকৃতিক জলাভূমি কমার কারণে এদের জনসংখ্যা কমে আসছে।

বন্য প্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বন্য প্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা মির্জা মেহেদী সরোয়ার বৃহস্পতিবার প্রথম আলোকে বলেন, সংরক্ষিত বনে অবমুক্তির কারণে মেছো বিড়ালগুলো পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ত। খাদ্যসংকটসহ প্রজনন ও বংশবৃদ্ধি ব্যাহত হতো। বেশির ভাগ শাবককেই বাঁচানো যেত না। এখন যে এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয় সেখানে অবমুক্ত করার ফলে এরা স্বাচ্ছন্দ্যে চলাফেরা, বসবাস ও প্রজননকাজ সম্পন্ন করতে পারছে। শাবকগুলো মায়ের কাছে পরম যত্নে বেড়ে উঠছে।

মির্জা মেহেদী সরোয়ার আরও বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা লিফলেট বিতরণসহ সচেতনতামূলক প্রচারণা চালাচ্ছি। এতে সাধারণ মানুষ প্রকৃতিতে এদের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করতে পারছেন, সচেতন হচ্ছেন।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন